Monday 17th June 2024
Monday 17th June 2024

Notice: Undefined index: top-menu-onoff-sm in /home/hongkarc/public_html/wp-content/themes/newsuncode/lib/part/top-part.php on line 67

প্রেমিকাকে বন্ধুদের নিয়ে ধর্ষণ করার অভিযোগ প্রেমিকের বিরুদ্ধে

প্রেমিকাকে বন্ধুদের নিয়ে ধর্ষণ করার অভিযোগ প্রেমিকের বিরুদ্ধে

নিখোঁজের একদিন পর হাত-পা, মুখ ও চোখ বাঁধা অবস্থায় এক কলেজ ছাত্রীকে উদ্ধার করা হয়েছে। ৩১ মে শুক্রবার রাতে শরীয়তপুরের ডামুড্যা উপজেলার সিঁধুলকুড়া কাঠের ব্রিজ থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়। প্রেমের সম্পর্ক ছিন্ন করায় প্রেমিক ও তার বন্ধুরা ধর্ষণ করে ওই ছাত্রীকে ব্রিজে ফেলে গেছে বলে কলেজ ছাত্রী ও তার পরিবার দাবী করেছে।
ধর্ষিতা ও তার পরিবার সূত্রে জানা গেছে, সিয়াম পেদা নামে শামসুর রহমান কলেজের দ্বাদশ শ্রেণিতে পড়ুয়া এক ছাত্রের সাথে ওই কলেজ ছাত্রীর প্রেমের সম্পর্ক ছিল। কিছু দিন ধরে তাদের সম্পর্কে টানাপোরেন চলছিল। গত ৩০ মে বৃহস্পতিবার কলেজ থেকে বাড়ি ফিরছিলেন ওই ছাত্রী। ডামুড্যা উপজেলার ফরাজি টেক এলাকা থেকে প্রেমিক সিয়াম পেদা তার অপর চার বন্ধুর সহায়তায় প্রেমিকাকে অপহরণ করে পরিত্যক্ত একটি ঘরে নিয়ে যায়। পরে ৫ জন মিলে পালাক্রমে ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করে অপহরণকারীরা। যথা সময়ে বাড়ি না ফেরায় ওই ছাত্রীর পরিবারের লোকজন তাকে আত্মীয়-স্বজনের বাড়িসহ সম্ভাব্য স্থানে খোঁজ করতে থাকে। কোথাও সন্ধান না পেয়ে পরিবারের লোকজন ছাত্রীর নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি ডামুড্যা থানা পুলিশকে জানায়। শুক্রবার রাত ১০টার দিকে কিশোরীর বাবা জানতে পারেন ডামুড্যার সিঁধলকুড়া কাঠের ব্রিজের ওপর হাত-পা, চোখ ও মুখ বাঁধা অবস্থায় এক কিশোরীকে পাওয়া গেছে। সেখানে গিয়ে মেয়েকে শনাক্ত করেন তিনি। পরে পুলিশে খবর দেওয়া হয়। পুলিশ কলেজ ছাত্রীকে উদ্ধার করে প্রথমে ডামুড্যা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে শরীয়তপুর সদর হাসপাতলে ভর্তি করেন।
ভুক্তভোগী কিশোরীর বাবা বলেন, আমার মেয়ে নিখোঁজের সংবাদ থানায় জানিয়ে আমরা বাড়িতে ফিরছিলাম। তখনই খবর পাই এক মেয়েকে সিঁধলকুড়া কাঠের ব্রিজের ওপর হাত-পা বাঁধা অবস্থায় পাওয়া গেছে। সেখানে গিয়ে আমার মেয়েকে চিনতে পারি।
শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার মিতু আক্তার বলেন, ধর্ষণের শিকার এক কিশোরীকে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসা হয়েছিল। ধর্ষণের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার জন্য আলামত সংগ্রহ করে ওই কিশোরীকে চিকিৎসা প্রদান করা হচ্ছে।
ডামুড্যা থানা অফিসার ইনচার্জ এমারত হোসেন বলেন, হাত-পা বাঁধা অবস্থায় এক কিশোরীকে উদ্ধার করা হয়েছে। ভিকটিমের স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। ভুক্তভোগীর পরিবারের পক্ষ থেকে এখনো কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।