বৃহস্পতিবার, ২৮শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১২ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২২শে রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি
বৃহস্পতিবার, ২৮শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

জলজটে নাকাল ভেদরগঞ্জে টেকের বাজার মোড়

জলজটে নাকাল ভেদরগঞ্জে টেকের বাজার মোড়
শরীয়তপুর-চাঁদপুর সড়কে ভেদরগঞ্জে টেকের বাজার অংশ। ছবি-দৈনিক হুংকার।

সামান্য বৃষ্টি হলেই খানাখন্দে ভরে যায় শরীয়তপুর-চাঁদপুর মহাসড়কের ভেদরগঞ্জ ও সখিপুরের বিভিন্ন অংশে পানি জমে মহাসাগরে পরিনত হয়। সংস্কার করলেও পানি জমে থাকার কারণে বিটুমিন উঠে গিয়ে বৃষ্টি হলে আবারও একই রূপ ধারণ করে।
সর্বশেষ গত কয়েক দিনের বৃষ্টিতে মহাসড়কের বিভিন্ন অংশজুড়ে অসংখ্য ছোট-বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। গর্তের কারণে যানবাহন চলাচল করছে এঁকেবেঁকে। ফলে যেকোনো মুহুর্তে ঘটে যেতে পারে বড় ধরণের দুর্ঘটনা। এতে করে গাড়িতে থাকা যাত্রীরা যেমন জীবন ঝুঁকিতে রয়েছে তেমনই পথচারীরাও।
শনিবার (১ জুন) সরেজমিনে দেখা যায়, প্রায় শতাধিক পরিবহন ও ট্রাকের দীর্ঘ লাইন। এই উপজেলার সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ মোড় টেকের হাট ন্যাশনাল ব্যাংক এলাকা। সড়কের উভয় পাশে দোকান গুলো উচু, তবে সড়কের পানি নামার কোন ব্যবস্থা না থাকায় সড়কে পানি জমে বড় বড় গর্তসৃষ্টি হয়ে হাটু পানি জমে থাকে। এসড়কে প্রায় গাড়ি বিকল হয়ে যাতায়াত বন্ধ হয়ে ঘন্টার পর ঘন্টা যানজট লেগে থাকে।
প্রায় সময় সড়ক দুর্ঘটনায় হতাহতের ঘটনা ঘটে। এ মোড়ের উভয়পাশে সৃষ্টি হয়েছে অসংখ্য গর্ত। যার কারণে ঝুঁকিপূর্ণ মোড়েও যানবাহন চলাচল করছে এঁকেবেঁকে। এতে সড়ক দুর্ঘটনার ঝুঁকি বেড়েছে। শুধু তাই নয় উপজেলার টেকের হাট থেকে শুরু হয়ে আলুর বাজার ফেরীঘাট পর্যন্ত মহাসড়কের বিভিন্ন অংশজুড়ে শত শত গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। অপরদিকে গর্ত হয়ে যাওয়ায় যানবাহন চলাচলের সময় জমে থাকা কাঁদা পানিতে জনজীবনে ভোগান্তি বেড়েছে কয়েক গুন।
বাজার ব্যবসায়ী সোহেল রাড়ী বলেন, আজ সকাল থেকে ৬ ঘন্টা ধরে জ্যাম লেগেছিল। বিশেষ করে ভেদরগঞ্জের হাটের দিনগুলোতে হেটে বাড়িতে যাওয়াও কষ্টকর হয়ে পরে। দিনে যেমন তেমন রাত হলেই মোটরসাইকেল নিয়ে এ সড়ক দিয়ে চলাচল আরো কষ্টকর। গর্তের আকার বুঝা যায়না। বেশ কয়েকবার গর্তে পড়ে দুর্ঘটনার শিকারও হয়েছি। বিষয়টা কর্তৃপক্ষের নজর দেয়া দরকার।
ট্রাক ড্রাইভার নজির উকিল জানান, সামান্য বৃষ্টি হলেই শরীয়তপুর-চাঁদপুর মহাসড়কের ভেদরগঞ্জে দুর্ভোগের শেষ নেই। সড়ক সংস্কার করলেও বেশিদিন ভালো থাকে না। দেখা যায় সড়কে আবারও গর্ত।
সমস্যার কথা জানিয়ে ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার তানভীর আল নাসীফ বলেন, আমি সড়কটি সচল রাখার জন্য নির্বাহী প্রকৌশলী সড়ক ও জনপথ বিভাগকে জানিয়েছি। সেই সাথে উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে ইট ফেলার ব্যবস্থা করেছি।
এ বিষয়ে শরীয়তপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী ভূইয়া রেদওয়ানুল হক বলেন, নতুন করে আমাদের শরীয়তপুর-চাঁদপুর চারলেন মহাসড়ক সংস্কারের কাজ চলমান রয়েছে। তাই এই সড়কটির কোন বরাদ্দ হয়নি এবং ৩ বছর মেয়াদী উন্নয়নের সীমিত বরাদ্দ আসলে সংস্কার কাজ করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

মন্তব্য

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।