শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ২০ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১১ রজব ১৪৪৪ হিজরি
শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

ঘর পেয়ে প্রধানমন্ত্রীর জন্য দোয়া করলেন হালিমা

হালিমা খাতুনকে আশ্রয়ণ প্রকল্পের জমির দলিল ও ঘর বুঝিয়ে দিচ্ছেন জেলা প্রশাসক মো: পারভেজ হাসান। ছবি-দৈনিক হুংকার।

হালিমা খাতুন এখন একটা নতুন ঘরে বসবাস করেন। নিজস্ব জমিতে নিজের বাড়ি এমনটা ছিল তার কল্পনায় স্বপ্ন। নিজস্ব ঘরে বসবাসের বিষয়ে হালিমা খাতুনের অনুভুতি জানতে চাইলে তিনি বলেন, জমিসহ ঘরটা আমাকে ‘ শেখ হাসিনা দিছে বাবা, শেখ হাসিনা। আল্লাহ তারে হায়াত বাড়ায় দিক, সবকিছুতে বরকত দিক।’
হাস্যজ্জ্বোল ভঙ্গিমায় হালিমা খাতুন আরো বলেন, এই ঘর পাওয়ার মাধ্যমে আমার ঠিকানা হইছে। এর পূর্বে আমার নিজস্ব ঠিকানা বলতে বিছুই ছিলনা। এই বাড়ি শুধু মাথা গোঁজার ঠাঁই না, স্বাধীন ভাবে জীবনযাপনের নিশ্চয়তা। আমি ও আমার সন্তানদের ঠিকানা।
হালিমা খাতুনের মতো আরো ১২টি পরিবার সদর উপজেলার শৌলপাড়ায় আশ্রয়ণ প্রকল্প-৩ এর ঘর পেয়েছেন। ভূমিহীন প্রতিবন্ধি হালিমা খাতুনসহ অন্যান্যরা এখন আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘরে বসবাস করেন। তাদের কেউ থাকতেন ভাড়া বাসায়, রাস্তার পাশে ঝুঁপরি ঘরে বা ঘর জামাই। এখন সকলেরই নিজেস্ব ভূমিসহ পাকা বাড়ির মালিক। তাদের সন্তানেরা এখন স্কুল-মাদরাসায় যায়।
হালিমা খাতুন তার ঘরের সামনে জেলা প্রশাসকের দেওয়া একটি কমলা ও একটি পেয়ারা গাছ লাগিয়েছেন। ঘরের চারপাশে বিভিন্ন শাক সব্জির গাছ লাগিয়েছেন। বাজার থেকে তাকে তরিতরকারি কিনতে হয় না। কিছুদিন পরে তিনি মেয়েকে সেলাই মেশিন কিনে দিবেন যাতে নিজে নিজে স্বাবলম্বী হতে পারে।
হালিমা খাতুনের এক ছেলে এক মেয়ে, ছেলে ঢাকায় থাকে নিজেদের কোন জায়গা জমি ছিল না। অন্যের জায়গায় থেকে মেয়েকে নিয়ে গ্রামের মানুষের কাছে হাত পেতে জীবীকা নির্বাহ করতেন। এখন তার প্রতিবেশীর বাড়িতে ঘুমাতে যেতে হয় না।
শরীয়তপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র বলেন, এভাবেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের সকল অসহায় ভূমিহীনদের ভূমির দলিলসহ পাকা ঘর দিয়ে তাদের জীবন যাত্রার মান বদল করে দিয়েছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।