শনিবার, ২ জুলাই ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৮ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২ জিলহজ ১৪৪৩ হিজরি
শনিবার, ২ জুলাই ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

এক মাসেই মমতাজকে বুঝিয়ে দেয়া হলো প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর

ফিতা কেটের প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর উদ্বোধন করছেন জেলা প্রশাসক মোঃ পারভেজ হাসান। ছবি-দৈনিক হুংকার।

শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার নাজিমপুর গ্রামের প্রতিবন্ধি পরিবারে জন্য প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ঘরের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনের একমাস পাঁচদিনের মধ্যে ঘর বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে।
রবিবার (৩০ মে) সকালে ওই অসহায় পরিবারের জন্য নির্মাণ করা ঘরটি উদ্বোধন করেন শরীয়তপুর জেলা প্রশাসক মো. পারভেজ হাসান।
গত এপ্রিল মাসের ২৪ তারিখ বিকালে ঘরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন জেলা প্রশাসক।
এরপরে ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী তানভীর আল নাসীফ এর তত্ত্বাবধানে দ্রুততার সাথে ঘরটি নির্মাণ সম্পন্ন করে আজ সুবিধা ভোগী পরিবারের হাতে বুঝিয়ে দেয়া হলো।
জানা গেছে, একই পরিবারের ৪ জনই প্রতিবন্ধি। জরাজীর্ণ ঘরে অনেক কষ্টে দিনাতিপাত করছিলো। এ খবর মিডিয়ায় প্রচার হলে বিষয়টি জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের নজরে আসে।
সরেজমিন গিয়ে জানাযায়, ভেদরগঞ্জে উপজেলার ছয়গাঁও ইউনিয়নের নাজিমপুর গ্রামের দরিদ্র খলিল চোকদার ২০ বছর আগে স্ত্রী, তিন ছেলে ও এক মেয়ে রেখে মারা যান। তার ছেলে মেয়েরা জন্মের পর থেকে স্বাভাবিক থাকলেও একটা সময় এসে তারা প্রতিবন্ধি হয়ে যান। বড় ছেলে আল আমিন (৩৫) চার বছর আগে মারা যান। ২৫ বছর পর্যন্ত স্বাভাবিক জীবন যাপন করলেও পরে আস্তে আস্তে সে প্রতিবন্ধি হয়ে মারা যায়। এছাড়া তার অন্য ছেলে আলম (৩০), জহিরুল (২৭) ও মেয়ে তানজিলা (২২) ছোটবেলায় স্বাভাবিক জীবন যাপন করলেও বড় হয়ে এখন প্রতিবন্ধি জীবন যাপন করছে। খলিল চোকদার মারা যাওয়ার পর তার স্ত্রী মমতাজ বেগম প্রতিবন্ধি ছেলেমেয়েদের নিয়ে মানুষের সহযোগিতায় কোন মতে বেঁচে আছেন। তাদের বসতঘর করার মতো এক টুকরা জমি ছাড়া আর কিছুই নাই।
এ বিষয়ে ভেদরগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের নজরে আসে। বিষয়টি নিয়ে ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার তানভীর আল নাসীফ কথা বলেন জেলা প্রশাসক মো. পারভেজ হাসান এর সাথে। জেলা প্রশাসক বিষয়টি অবগত হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এর দেয়া উপহারের ঘরের আওতায় একটি ঘর দিতে জেলা প্রশাসক উদ্যোগী হন। এর পরে জেলা এনজিও কমিটির সহযোগিতায় অসহায় পরিবারের ঘর নির্মাণের জন্য নগদ ২ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার এর হাতে তুলে দেন।
সোমবার সকালে সে ঘরের নির্মাণ শেষে আনুষ্ঠানিক উদ্ধোধন করেন জেলা প্রশাসক মোঃ পারভেজ হাসান। এসময় তাঁর সাথে উপস্থিত ছিলেন, ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার তানভীর আল নাসীফ, সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাফিউল মাজলুবিন রহমান, ভেদরগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান, ছয়গাঁও ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান লিটন মোল্লা। এসডিএস এর পরিচারক কামরুল হাসান বাদল, নুসার সহকারী পরিচালক জয়দেব কুন্ডু, সোডেপ নির্বাহী পরিচালক শামীম খন্দকার।
ঘরপ্রাপ্ত অসহায় রোকেয়া বেগম বলেন, প্রতিবন্ধি সন্তান নিয়ে একটা ভাঙাচোরা ঘরে অনেক কষ্টে মানুষের থেকে চেয়ে খেয়ে না খেয়ে জীবন ধারণ করছিলাম। আমাকে ঘর করে দেয়ায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আর জেলা প্রশাসক স্যার মো. পারভেজ হাসান ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার তানভীর আল নাসীফ স্যারকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।
ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার তানভীর আল নাসীফ বলেন, মিডিয়ার মাধ্যমে অসহায় পরিবারটির খবর জানতে পেরে জেলা প্রশাসক মহোদয়কে জানাই। তিনি জেলা এনজিও কমিটির দেয়া অনুদানের মাধ্যমে ঘরের নির্মাণের ব্যবস্থা করেছেন। উপজেলা প্রশাসন ভেদরগঞ্জের পক্ষ হতে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর মানবিক আহবানে সাড়া দিয়ে এই মহতী উদ্যোগে অংশগ্রহণকারীদের প্রতি।
জেলা প্রশাসক মোঃ পারভেজ হাসান বলেন, মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারা দেশে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য ঘর নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছেন। মিডিয়ার মাধ্যমে এই অসহায় প্রতিবন্ধি পরিবারটি নজরে আসলে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পাকা ঘর নির্মাণ করে দেওয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়। ঘর নির্মাণে আর্থিক সহযোগিতায় এগিয়ে আসে জেলা এনজিও কমিটি। এনজিও কমিটির ২ লাখ ৬০ হাজার টাকা অনুদানে ঘরের নির্মাণ কাজ শেষ হয়। মাত্র এক মাসের মধ্যে ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার তানভীর এর সহায়তায় ঘরটি সম্পন্ন করার জন্য সবার সাথে ইউএনওকেও আমি ধন্যবাদ জানাই।

সংবাদটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

মন্তব্য

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।