মঙ্গলবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৬ই রবিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি
মঙ্গলবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

জাজিরায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ২০ জন, ৫ বাড়ি ভাংচুর

জাজিরার বিলাশপুরে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে পুলিশের মোহড়া। ছবি-দৈনিক হুংকার।

সোমবার সকালে জাজিরা উপজেলার বিলাশপুর ইউনিয়নের চেরাগ আলী বেপারীকান্দি গ্রামে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে স্থানীয় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের মধ্যে দফায় দফায় বোমা হামলা ও সংঘর্ষে অন্তত ২০জন আহত হয়েছে। জাজিরা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সদস্য ও বিলাশপুর ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান তাহের সরদার এবং একই উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সদস্য ও বিলাশপুর ইউনিয়ন পারিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস বেপারীর সমর্থকদের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়েছে।
আতদের মধ্যে আব্দুল কুদ্দুস বেপারীর সমর্থক মন্তাজ বেপারীকে আশংকাজনক অবস্থায় ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। অন্য আহতদের মধ্যে রাব্বি, মান্নান মেম্বার, তোতা খান, সোহাগ বেপারী, তমিজ খাঁ দের বিভিন্ন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এ ঘটনায় ওই এলাকায় ৫টি ঘরবাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
জাজিরা থানা ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বিলাশপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান তাহের সরদার ও সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস বেপারীর মধ্যে এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন যাবত বিরোধ চলে আসছিল।
এ বিষয়ে বিলাশপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস বেপারী বলেন, পূর্বের একটি মারামারির ঘটনার জের ধরে ১৪ সেপ্টেম্বর সোমবার সকালে তাহের সরদারের সমর্থকরা ধারালো রাম দা, টেটা, সরকি, লাঠিসোটা ও বোমা নিয়ে আমার লোকজনকে এলাকায় ধাওয়া করে। এসময় আমার সমর্থকরা বাড়িতে এসে আশ্রয় নিলে তারা আমার বাড়িতে এসে হামলা করে।
বর্তমান চেয়ারম্যান তাহের সরদার মুঠোফোনে বলেন, আমি ঢাকায় আছি। তাই এ বিষয়ে আমি কিছুই বলতে পারব না। যা সত্য তাই লিখেন।
এ বিষয়ে জাজিরা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আজহারুল ইসলাম সরকার বলেন, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বিলাশপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও সাবেক চেয়ারম্যানের সমর্থকদের মধ্যে বোমা ফাটিয়ে আতংক সৃষ্টি ও মারামারির ঘটনা ঘটেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। বর্তমানে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এই বিষয়ে অভিযোগ পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।