শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

রাস্তায় ল্যাট্রিন নির্মাণ করে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি, ভোগান্তিতে ২৫ পরিবার

পৌরসভার রাস্তা দখল করে সৌচাগার নির্মাণ। ছবি-দৈনিক হুংকার।

শরীয়তপুর পৌরসভার অর্থায়নে নির্মিত রাস্তার উপরে ল্যাট্রিন নির্মাণ করে চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা হয়েছে। ওই রাস্তা দিয়ে পায়ে হেটে চলাচল করা সম্ভব হলেও কোন যানবাহন চলাচল করতে পারছেনা। ভুক্তভোগী পরিবার বিষয়টি লিখিত ভাবে শরীয়তপুর পৌরসভা ও জেলা প্রশাসনকে অবহিত করেছে। পৌর কর্তৃপক্ষ ও জেলা প্রশাসন এই বিষয়ে টয়লেট নির্মাতাকে বারবার নোটিশ করেছেন। তার পরেও অদ্যবধি টয়লেট অপরাসণ করা হয়নি।
লিখিত অভিযোগ থেকে জানাগেছে, শরীয়তপুর প্রধান সড়ক থেকে পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ডে হাওলাদার ক্লিনিকের পাশ দিয়ে পৌরসভার অর্থায়নে ২০১৮ সালে ৮ ফুট প্রস্থ একটি সিসি রাস্তা নির্মাণ শুরু করে। রাস্তা নির্মাণ চলাকালে আলমগীর হাওলাদার নামে এক ব্যক্তি রাস্তার ৩ ফুট দখল করে একটি ল্যাট্রিন নির্মাণ করে। রাস্তার অপর পাশে মোড়ের মধ্যে রাসেল নামে এক ব্যক্তি টিন দিয়ে বেড়া দিয়ে রাখে। ল্যাট্রিন ও টিনের বেড়ার কারণে রাস্তা দিয়ে চলাচলকারী প্রায় ২৫টি পরিবার সমস্যার সম্মুখিন হয়। ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের পক্ষে মাসুক আলী দেওয়ান নামে এক ব্যক্তি তৎকালিন পৌর মের রফিকুল ইসলাম কোতোয়ালের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। মেয়র সরেজমিন পরিদর্শন করে রাস্তার উপর ল্যাট্রিন নির্মাণকারী ও বেড়াদানকারী ব্যক্তিদের ৭ দিনের মধ্যে ল্যাট্রিন এবং বেড়া সরিয়ে নিতে নির্দেশ প্রদান করেন। নোটিশ প্রদানের ৪ বছর পার হয়ে গেলেও অদ্যবধি রাস্তার উপর নির্মিত অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেয়নি। ইতোমধ্যে নতুন মেয়র পারভেজ রহমান পৌরসভায় দায়িত্বভার গ্রহণ করেছেন। তার কাছেও লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। মেয়রের পরামর্শে পুনরায় জেলা প্রশাসনেও লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। উভয় প্রতিষ্ঠান পুনরায় অবৈধ স্থাপনা ৭ দিনের মধ্যে সরিয়ে নিতে নির্দেশ প্রদান করেছেন। অদ্যবধি সেই স্থাপনা সরিয়ে নেওয় হয়নি। এতে প্রায় ২৫টি পরিবার নির্বিঘ্নে চরাফেরা করতে পারছেনা।
আবেদনকারী মাসুক আলী দেওয়ান বলেন, আমি বাড়ির নির্মাণ কাজ শুরু করি। রাস্তার উপর ল্যাট্রিন ও বেড়া থাকায় ট্রলি বা নছিমন জাতীয় কোন গাড়িতেও নির্মাণ সামগ্রী বহন করতে পারছি না। কোন ধরণের দুর্ঘটনা ঘটলে এ্যাম্বুলেন্স ও ফায়ার সার্ভিসের গাড়িও যেতে পারবে না। রাস্তা জুড়ে ল্যাট্রিন ও টিনের বেড়া সরিয়ে নিতে প্রথমে সাবেক মেয়র পরে বর্তমান মেয়রের কাছে অভিযোগ করি। তারা উভয়কে অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নিতে নোটিশ করেছে। তবুও বেড়া বা ল্যাট্রিন সরিয়ে নেয়নি। পরে জেলা প্রশাসনে অভিযোগ করেও কোন সমাধান পাইনি।
এই বিষয়ে মেয়র পারভেজ রহমান বলেন, অভিযোগ প্রাপ্তির পরে ৭ দিনের মধ্যে উভয়কে অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নিতে নোটিশ করা হয়েছে। চলাচলের রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা পৌরসভা আইন ২০০৯ অনুযায়ী অপরাধ। স্থাপনা সরিয়ে না নেওয়া হলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।