শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ২০ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১১ রজব ১৪৪৪ হিজরি
শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

বাংলাদেশে ফ্রান্সের দূতাবাস বন্ধ ও পন্য বর্জনের দাবীতে শরীয়তপুরে উলামা পরিষদের বিক্ষোভ মিছিল

বাংলাদেশে ফ্রান্সের দূতাবাস বন্ধ ও পন্য বর্জনের দাবীতে শরীয়তপুরে উলামা পরিষদের বিক্ষোভ মিছিল
বাংলাদেশে ফ্রান্সের দূতাবাস বন্ধ ও পন্য বর্জনের দাবীতে শরীয়তপুরে উলামা পরিষদের বিক্ষোভ মছিল। ছবি-দৈনিক হুংকার।

ফ্রান্সে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় বিশ্ব নবী (সা.) এর অবমাননা ও ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে শরীয়তপুরে উলামা পরিষদের উদ্যোগে বিশাল বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ থেকে বাংলাদেশে অবস্থিত ফ্রান্সের দূতাবাস বন্ধ ও ফ্রান্সের সকল পণ্য বর্জন করার জন্য সরকার প্রধানের কাছে আহবান জানানো হয়। বুধবার বেলা ১১টায় পালং উত্তর বাজার জামে মসজিদ থেকে উলামা পরিষদের সভাপতি মাওলানা শফিউল্লাহ খানের নেতৃত্বে হাজার হাজার মুসল্লির অংশগ্রহনে এই বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে শরীয়তপুর পৌরসভা অডিটোরিয়াম মাঠে বিক্ষোভ সমাবেশ করে। বিক্ষোভ সমাবেশ পরিচালনা করেন মাওলানা ইদরীস কাসেমী ও মাওলানা মঈনুদ্দিন কাসেমী। বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন মাওলানা বাতেন ফরিদী, মাওলানা শওকত আলী, মাওলানা জিয়াউল হক কাসেমী, মাওলানা জালাল উদ্দীন আহমাদ, হাফেজ কারামাত আলী, মাওলানা আবু বকর, মুফতী আব্দুর রাজ্জাক, মাওলানা নাফিছুর রহমান নেকীর, মাওলানা নাঈম আব্বাসী, মাওলানা সাব্বির আহমেদ উসমানী, মাওলানা মাহদী হাসান সিরাজী, মুফতী তোফায়েল আহমাদ, মুফতী ফেরদাউস আহমাদ, মাওলানা আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, মাওলানা কবীর আহমাদ ফরিদী, মাওলানা ফারুকুল ইসলাম, মাওলানা আবু বকর খান প্রমূখ প্রমূখ।
এই সময় বক্তারা বলেন, বিশ্ব মানবতার মুক্তিদুত, মানবতার নবী, সকল মুসলমানের প্রাণাধিক প্রিয় মুহাম্মাদ (সা.) এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শণ করে বিশ্বের ২০০ কোটি মুসলমানের কলিজায় আঘাত হেনেছে। মুসলমানদের কলিজায় রক্তক্ষরণ হচ্ছে। এ মূহুর্তে বিন্দুমাত্র ঈমান থাকলে কোন মুসলমান চুপ করে বসে থাকতে পারে না। ফ্রান্স সরকারকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে হবে। যতক্ষন পর্যন্ত ক্ষমা না চাইবে ততক্ষণ পর্যন্ত আমাদের এই আন্দোলন চলতে থাকবে। আমাদের সরকারের কাছে আবেদন করছি সরকার যেন অনতিবিলম্বে সংসদে নিন্দা পাশ করে এবং ফ্রান্স সরকারের সাথে সকল ধরণের কুটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করেন। বাংলাদেশে অবস্থিত ফ্রান্সের দূতাবাস ও বাংলাদেশের বাজার থেকে ফ্রান্সের সকল পন্য বর্জনের ঘোষনা প্রদান করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।