রবিবার, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১৫ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৬ রজব ১৪৪৪ হিজরি
রবিবার, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

কৃষি উৎপাদন ও বিপণন উভয় ক্ষেত্রেই গুরুত্ব দিতে হবে: জেলা প্রশাসক

মিরাশা চাষী বাজার পরিদর্শন করছেন জেলা প্রশাসক মো: পারভেজ হাসান। ছবি-দৈনিক হুংকার।

শরীয়তপুর জেলা প্রশাসক মোঃ পারভেজ হাসান বলেছেন, কৃষি উৎপাদন বাড়াতে সরকার যেমনি ভাবে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছে। তেমনি ভাবে বাজার ও বিপণন ব্যবস্থার উন্নয়নের দিকে নজর দিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি শুক্রবার (২৬ নভেম্বর) সকালে জাজিরা উপজেলার কৃষিপণ্যের পাইকারী বাজার (মিরাশা চাষি বাজার) সহ উপজেলার কৃষিভিত্তিক বিভিন্ন প্রকল্প পরিদর্শন শেষে সমবেত জনতার সমাবেশে এ কথা বলেন।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার কার্যালয়ের অধিনে উপজেলা পরিষদের সম্প্রসারিত ভবনের সামনে খালি জায়গার কৃষি প্রকল্প পরিদর্শন, এরপর জাজিরা ইউনিয়নের আশ্রয়ণ প্রকল্প পরিদর্শন, সেখানকার খালি পরিত্যাক্ত জমিতে শাক-সবজি উৎপাদনের পরামর্শ প্রদান করেন।
এর পরে জাজিরার ঐতিহ্যবাহী মিরাশা চাষী বাজার পরিদর্শন করে উপস্থিত কৃষকদের অধিক শাক-সবজি চাষে বিভিন্ন পরামর্শ প্রদানের পাশাপাশি তাদের বিভিন্ন সমস্যার কথা শুনেন এবং সমস্যা সমূহ দ্রুত সমাধানের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তর প্রধানদের নির্দেশনা প্রদান করেন। পাশাপাশি মাঠ পরিদর্শনের অংশ হিসেবে ফুলকপি ও বাঁধাকপি ক্ষেত পরিদর্শন করেন।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, জাজিরা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোবারক আলী শিকদার, জাজিরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কামরুল হাসান সোহেল, উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) উম্মে হাবিবা ফারজানা, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো. জামাল হোসেন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পারভীন আক্তার, জাজিরা থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজুর রহমান, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম ও চাষী বাজার কর্তৃপক্ষ সহ স্থানীয় কৃষক-কৃষানীগণ।
জেলা প্রশাসক মোঃ পারভেজ হাসান আরো বলেন, “এক ইঞ্চি জমিও অনাবাদি রাখা যাবে না” মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এ ঘোষণা বাস্তবায়নে জেলা প্রশাসন ও উপজেলা প্রশাসনের সহায়তায় জেলার অভ্যন্তরে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধিতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। অনাবাদি পতিত জমি ব্যবহারের অংশ হিসেবে জাজিরা উপজেলা কৃষি অফিসারের কার্যালয় কর্তৃক ২ বিঘা জমিতে আবাদ করা সরিষা, সূর্যমুখীর ক্ষেত, লাউ ও মিষ্টি কুমড়ো মাঠ এবং রাস্তার ধারে ও বসতবাড়ীর আশেপাশে পতিত জমি ব্যবহারে কৃষকদের উদ্বুদ্ধকরণ করতে কৃষকদের সাথে মতবিনিময় করেছি। সে সাথে ফসলী মাঠ পরিদর্শন করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা বাস্তবায়নে সকল কে এক যোগে কাজ করে অধিক ফলন উৎপাদনে উৎসাহ প্রদান করেছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।