শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ২০ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১১ রজব ১৪৪৪ হিজরি
শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

শরীয়তপুরে বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস পালিত

শরীয়তপুরে বিশ^ জলাতঙ্ক দিবসের আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখছেন সিভিল সার্জন ডাঃ আবদুল হাদি মোঃ শাহপরান। ছবি-দৈনিক হুংকার।

‘জলাতঙ্ক: মৃত্যু আর নয়, সবার সাথে সমন্বয়’ এই প্রতিপাদ্যের মাঝ দিয়ে শরীয়তপুর জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ জুনেটিক ডিজিজ কন্টোল প্রোগ্রামের সহায়তায় বিশ্ব জলাতঙ্ক বা র‌্যাবিস দিবস পালন করেছে।
দিবসটি উপলক্ষে বুধবার (২৮ সেপ্টেম্বর) এ উপলক্ষে জেলা সিভিল সার্জনের সম্মেলন কক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সিভিল সার্জন ডাঃ আবদুল হাদি মোঃ শাহপরান এর সভাপতিত্বে ও জেলা স্বাস্থ্য শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ মাহাবুবার রহমান এর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা প্রাণী সম্পদ অফিসার ডাঃ সুবোধ চন্দ্র দাস, জেলা সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডাঃ আবদুস সোবাহান, ডিআইও-১ শাহারিয়ার হাসান, সদর হাসপাতালের আরএমও ডাঃ সুমন কুমার পোদ্দার, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শ্যামল চন্দ্র শর্মা, সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার ডাঃ ইব্রাহিম মাঝি, সাংবাদিক এসএম মজিবুর রহমান।
সভাপতির বক্তব্যে সিভিল সার্জন বলেন, ২০০৭ সাল থেকে বাংলাদেশসহ এশিয়ার ১২টি দেশে বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস পালন করা হয়। এবারের প্রতিপাদ্য ‘জলাতঙ্ক: মৃত্যু আর নয়, সবার সাথে সমন্বয়’। বিজ্ঞানী লুই পাস্তর ২৮ সেপ্টেম্বও মৃত্যুবরণ করেছিলেন। এই মহান বিজ্ঞানীর মৃত্যুর পূর্বে জলাতঙ্কের টিকা আবিষ্কার করেছিলেন। তার এই অবদানকে পৃথিবীর বুকে অবিস্মরণীয় করে রাখতে এবং এ রোগের ভয়াবহতা অনুধাবন করে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিশে^র অন্যান্য দেশের সাথে বাংলাদেশেও ২০০৭ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর থেকে বিশ^ জলাতঙ্ক দিবস উদযাপিত হয়ে আসছে।
দিবসকে সামনে রেখে সরকার, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ও দেশীয় সংগঠনের পক্ষ থেকে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। এ কর্মসূচির আওতায় জেলা এবং উপজেলা পর্যায়ে সেমিনার, মুক্ত আলোচনা, জনসচেতনতামূলক কার্যক্রমসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়েছে।
জলাতঙ্ক র‌্যাবিস ভাইরাসজনিত একটি মারাত্মক সংক্রামক রোগ। র‌্যাবিস ভাইরাস দ্বারা সংক্রমিত কুকুর রোগটির প্রধান বাহক। এছাড়াও অন্যান্য প্রাণী যেমন বিড়াল, শিয়াল, বেজি, বানরও রোগটি ছড়াতে পারে। বর্তমানে বিশ্বে বছরে ৫৯ হাজার মানুষ এ রোগে মারা যায়। রোগের লক্ষণ একবার প্রকাশ পেলে মৃত্যু নিশ্চিত। তবে সময়মত অর্থাৎ কামড় বা আঁচড়ের সাথে সাথে আক্রান্ত স্থান সাবান পানি দিয়ে ধুয়ে পূর্ণ ডোজ টিকা গ্রহণের মাধ্যমে রোগটি শতভাগ প্রতিরোধ করা সম্ভব।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে উষ্ণমন্ডলীয় অবহেলিত রোগগুলোর মধ্যে জলাতঙ্ক অন্যতম কারণ। এ রোগে সাধারণত গ্রামীণ জনপদের হত-দরিদ্র জনগোষ্ঠী ও শিশুরা সর্বাধিক আক্রান্ত হয়। অজ্ঞতার দরুণ তারা চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।