শনিবার, ২ জুলাই ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৮ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২ জিলহজ ১৪৪৩ হিজরি
শনিবার, ২ জুলাই ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

জেলা পরিষদের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যত্নে বেড়ে উঠছে সড়ক বাগান

কানার বাজার-বড়িরহাট সড়কে গাছের পরিচর্যা করছেন জেলা পরিষদের কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ। ছবি-দৈনিক হুংকার।

প্রকৃতির ভারসাম্য রক্ষায় শরীয়তপুর জেলা পরিষদ ২০২০-২০২১ অর্থ বছরে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ২০ হাজার ফুল, ফল ও ঔষধী চারা রোপন করে।
তারই অংশ হিসেবে বুড়িরহাট প্রেমতলা ভায়া কানার বাজার সড়কের উভয় পাশে ফল আম কাঠাল, আমড়া, পিয়ারা, জাম, জামরুল ও আমরোজ চারা। ফুল বৃক্ষ বকুল সোনালু, জারুল, কৃষ্ণচূড়া, ঔষধী বৃক্ষের মধ্যে আমলকি, হরতকি, বহেরা ও অর্জুন বৃক্ষের চারা রোপন করেছে।
চারা রোপন করেই দায় সারেনি, জেলা পরিষদের কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ সম্মিলিত ভাবে তাদের যত্ন আর পরিচর্চা চালিয়ে যাচ্ছেন।
সড়কের পাশের বাগানের বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে পার্শ্ববর্তী ছয়গাঁও গ্রামের যুবক মাসুদুর রহমান ডালিম বলেন, আমাদের বািড়হাট- কানার বাজার সড়কের ২ পাশে জেলা পরিষদ গত বছর যে গাছ রোপন করেছে তা এখন সবুজ সতেজ হয়ে বেড়ে ঊঠছে। সত্যি বলতে কি জেলা পরিষদের কর্মকর্তা কর্মচারীরা নিয়মিত গাছ গুলোর যত্ন করে বলেই হয়তো এতটা সুন্দর ভাবে বেড়ে উঠছে। তা না হলে এতো দিনে গরু ছাগলের পেটে চলে যেতো। অন্যান্য স্থানে সরকারি ভাবে রোপন করা গাছের ভাগ্যে যা ঘটে থাকে। এখানে তার উল্টো ঘটেছে। আমরা দেখছি এ গাছ গুলো যেন তাদের প্রত্যেকের নিজেদের গাছ মনে করে যত্ন করে থাকে।
হিসাব রক্ষক মীর জসীম বলেন, আমরা জেলা পরিষদের থেকে এ সড়কের উভয় পাশে ফুল, ফল ও ঔষধী চারা রোপন করেছি। চারা গুলো যাতে দ্রুত বৃদ্ধি পায় তার জন্য আমরা আমাদের সিইও স্যারের নেতৃত্বে স্বেচ্ছা শ্রমের মাধ্যমে প্রতি সপ্তাহে দুইদিন অফিস সময়ের পূর্বে ও পরে ৩ ঘন্টা করে সড়ক বাগানের গাছে পরিচর্যা করে থাকি।
জেলা পরিষদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোঃ নূর হোসেন বলেন, আমরা ২০২০-২০২১ অর্থ বছরে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ২০ হাজার ফুল, ফল ও ঔষধী গাছের চারা রোপন করেছি। বৃক্ষরোপণ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ছাবেদুর রহমান খোকা সিকদার। আমাদের রোপন কর্মসূচির মধ্যে আমরা কানার বাজার-বুড়িরহাট সড়কের বাগানটি নিজেরা নিয়মিত রক্ষনাবেক্ষণ ও যত্ন করি। এখানে আমাদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা স্যারসহ আমরা সবাই পালাক্রমে অফিস শুরুর আগে ও পরে কাজ করে থাকি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

মন্তব্য

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।