শনিবার, ২ জুলাই ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৮ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২ জিলহজ ১৪৪৩ হিজরি
শনিবার, ২ জুলাই ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শরীয়তপুরের ১৭০ পরিবার পেল প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহারের ঘর

শরীয়তপুর সদরে গৃহহীন ও ভূমিহীনদের মাঝে জমির দলিল ও ঘরের চাবি হস্তান্তর করছেন জেলা প্রশাসক মো: পারভেজ হাসান। ছবি-দৈনিক হুংকার।

তৃতীয় ধাপে শরীয়তপুরে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পেল জেলার ১৭০ পরিবার। এ ধাপে দেশের ৬৫ হাজারের বেশি পরিবার পেতে যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর। ঈদুল ফিতরের উপহার হিসেবে মঙ্গলবার (২৬ এপ্রিল) ভূমিহীন ও গৃহহীন এসব পরিবারের মাঝে ৩২ হাজার ৯০৪টি ঘর হস্তান্তর করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
তারই অংশ হিসেবে শরীয়তপুর জেলার ৬ উপজেলায় মোট ১৭০টি পরিবার পাচ্ছে ঘর। প্রধানমন্ত্রী তার সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি সারাদেশে একযোগে তৃতীয় পর্যায়ের জমির দলিল ও ঘরের চাবি প্রদান কর্মসূচি উদ্বোধন করেন।
শরীয়তপুর জেলা প্রশাসন সূত্রে জানাগেছে, তৃতীয় ধাপে শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া উপজেলায় ১০টি, শরীয়তপুর সদর উপজেলায় ৫৮টি, জাজিরা উপজেলায় ২৭টি, ডামুড্যায় ৩৬ টি, গোসাইরহাটে ২৪টি ও ভেদরগঞ্জে ১৫টি ঘর ভূমিহীন ও গৃহহীনদের মাঝে হস্তান্তর করা হয়েছে। এগুলো ঈদের আগে গৃহহীন ও ভূমিহীনদের মাঝে হস্তান্তর করার মধ্যদিয়ে তাদের ঈদ আনন্দে নতুন মাত্রা যুক্ত হবে।
শরীয়তপুর জেলা ইসলামিক ফাউন্ডেশন মিলনায়তনে বিতরণ উপলক্ষে শরীয়তপুরে যুক্ত ছিলেন জেলা প্রশাসক মোঃ পারভেজ হাসান।
এসময় সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল হাসেম তপাদার, শরীয়তপুর পৌরসভার মেয়র পারভেজ রহমান জন, সিভিল সার্জন এসএম আব্দুল্লাহ আল মুরাদ, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শামীম হোসেন, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনদীপ ঘরাই, সদর পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি এমএম জাহাঙ্গীর, শরীয়তপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ তালুকদার, সদর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সামিনা ইয়াসমিন, জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নুহুন মাদবর উপস্থিত ছিলেন।
শরীয়তপুরের জেলা প্রশাসক পারভেজ হাসান জানান, মুজিববর্ষ উপলক্ষে ২০২০ সালের ৭ মার্চ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা দিয়েছিলেন যে, দেশে একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের মাধ্যমে প্রতিটি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে দুই শতাংশ খাসজমি বন্দোবস্ত প্রদান পূর্বক টিনশেড সেমিপাকা ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হচ্ছে। উপকারভোগীদের কাছে কবুলিয়ত, নামজারি খতিয়ান ও দাখিলা হস্তান্তর করার জন্য সানুগ্রহ সম্মতি প্রদান করেছেন। ঘরগুলো মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে ঈদের বিশেষ উপহার হিসেবে জেলার নড়িয়ায় ১০টি, সদরে ৫৮টি, জাজিরায় ২৭টি, ডামুড্যায় ৩৬টি, গোসাইরহাটে ২৪টি ও ভেদরগঞ্জ উপজেলায় ১৫টি। মোট ১৭০টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের মাঝে। এদিকে, আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের ৩য় পর্যায়ে ১৭০টি হাস্তান্তরসহ জেলায় ২ হাজার ২১৮টি ঘর গৃহহীনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে এবং প্রক্রিয়াধীন আছে। ঘর পাওয়া আনোয়ারা বেগম, মনোরা বেগম, ইব্রাহীম মাঝি বলেন, আমাদের এক টুকরা জমি ও ঘর ছিলনা। আজ আমাদের ঠিকানা হয়েছে। আজ বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদেরকে ঘর ও জমি দিয়েছেন। আমরা খুব খুশি। প্রধানমন্ত্রীর জন্য দোয়া করি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

মন্তব্য

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।