শুক্রবার, ৩রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৮শে রবিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি
শুক্রবার, ৩রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সাবেক প্রেমিকার সাথে ধরা খেয়ে স্কুল শিক্ষকের দ্বিতীয় বিয়ে

সাবেক প্রেমিকার সাথে ধরা খেয়ে স্কুল শিক্ষকের দ্বিতীয় বিয়ে
সাবেক প্রেমিকার সাথে ধরা খেয়ে স্কুল শিক্ষকের দ্বিতীয় বিয়ে

পেশাগত প্রশিক্ষণ নিতে এসে সাবেক প্রেমিকার সাথে সম্পর্কের উন্নতি হয় শিক্ষক কামরুজ্জামান রুমির। সম্পর্ক গড়ায় বেডরুমের বিছানা পর্যন্ত। এক পর্যায়ে দুজনকে আপত্তিকর অবস্থায় ধরে স্থানীয়রা পালং মডেল থানা পুলিশে হস্তান্তর করে। বিয়ের শর্তে থানা থেকে ছাড়া পেয়ে প্রথম স্ত্রীর সম্মতিতে পালং কাজী অফিসে তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়।
গত রাতে শরীয়তপুর পিটিআই ট্রেনিং সেন্টারের পাশে ভাড়া বাসায় এ ঘটনা ঘটে। স্কুল শিক্ষক কামরুজ্জামান রুমি ভেদরদঞ্জ উপজেলার ১৩৫ নং ওবাইদুল হাওলাদার কান্দি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক। সে বর্তমানে শরীয়তপুর পিটিআই ট্রেনিং সেন্টারে ডিপিএড প্রশিক্ষণরত আছেন।
জানাগেছে, পালং মডেল থানা পুলিশের কাছে স্কুল শিক্ষক ও তার সাবেক প্রেমিকা বিয়েতে রাজী হয়। পরবর্তীতে মুচলেকা রেখে বিয়ের করার শর্তে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়। পরবর্তীতে প্রথম স্ত্রীর সম্মতিক্রমে পালং কাজি অফিসে চার লক্ষ টাকা দেনমোহর ধার্য্য করে তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়।
বিয়ে শেষে স্কুল শিক্ষক কামরুজ্জামান রুমি নিজের ভূল স্বীকার করে বলেন, আমি শিক্ষক হয়ে এ অনৈতিক কাজ করা ঠিক হয়নি। দীর্ঘ ২২ বছর পূর্বে থেকে এই সম্পর্ক ছিল। পরিবারে মতামত উপেক্ষা করতে না পারায় অনত্র বিয়ে করতে হয়। এবার প্রথম স্ত্রী ও পরিবারের সম্মতিতে পূর্বের প্রেমিকাকে বিয়ে করে প্রেমের সম্পর্ক বহাল রাখতে পেরেছি।
পালং মডেল থানা অফিসার ইনচার্জ আক্তার হোসেন বলেন, স্থানীয়দের সংবাদের ভিত্তিতে তাদের আটক করা হয়। বিয়ের শর্তে বিষয়টির মীমাংসা হয়। তাছাড়া কোন পক্ষ থেকে অভিযোগ না থাকায় প্রথম স্ত্রীর জিম্মায় ছেড়ে দেওয়া হয়। শুনেছি তারা বিয়ে করেছে।
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আবুল কালাম আজাদ বলেন, একজন শিক্ষক সমাজের বিবেক। তার মাধ্যমে সমাজ শিখবে। তবে রুমি যে অপরাধ করেছে তার শাস্তি পেতে হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

মন্তব্য

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।