শুক্রবার, ৫ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২০শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২১শে রজব, ১৪৪২ হিজরি
শুক্রবার, ৫ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

নড়িয়ায় সেনাবাহিনীর পক্ষ হতে ৩০০ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা

নড়িয়ায় সেনাবাহিনীর পক্ষ হতে ৩০০ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা
নড়িয়ায় সেনাবাহিনীর পক্ষ হতে ৩০০ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা

শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলায় সামাজিক দূরত্ব ও শৃংখল ভাবে নিম্ন মধ্যবিত্ত ও অসহায় দরিদ্র পরিবারের মঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান করে সেনাবাহিনী।

নড়িয়া বিহারীলাল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ২৮ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট সেন্টারের উদ্যোগে নড়িয়া উপজেলার ৩০০ পরিবারের মাঝে এ খাদ্য সহায়তার উপহার বিতরণ কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছে।

শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার নিম্ন মধ্যবিত্ত ও অসহায় দরিদ্রের মাঝে সুশৃঙ্খলভাবে এই কার্যক্রম পরিচালনা করেন ২৮ ইস্টবেঙ্গল রেজিমেন্টের কর্মকর্তা ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ রকিবুল আলম ও তার দল। তিনি বলেন সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে আমরা এ সহায়তা প্রদান করছি এবং সত্যিকার অর্থে যারা গরীব, অসহায়, কর্মহীন ও নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবার তারা যেন এই সহায়তা পায়, সেই লক্ষেই আমাদের এই পরিকল্পনা।

এছারাও দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে আমরা মাঠ পর্যায়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে এই সহায়তা দিয়ে আসছি এবং আমাদের উর্দ্ধতন কর্মকর্তা আদেশ অনুযায়ী আমাদের এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

২৮ ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের কমান্ডিং অফিসার লেফটেন্যান্ট কর্নেল সামি – উদ – দৌলা চৌধুরী বলেন , ” এটা কোন সাহায্য নয় , এটা তাদের প্রাপ্য ” আমরা আমাদের মতাে করে বিভিন্ন এলাকা থেকে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে তথ্য নিয়ে প্রকৃত লােকদেরকে তাদের প্রাপ্য পৌঁছে দেয়ার চেষ্টা করছি । তারই ধারাবাহিকতায় প্রতিনিয়ত আমরা মাঠে কাজ করছি । বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে এদের তথ্য নেই তারপরে বাড়িতে গিয়ে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেই । আমরা চাই প্রকৃত যে পাওয়ার সেই এই পাক । এদের মধ্যে অনেকেই আছেন মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্ত এবং একেবারে অসহায় দুস্থ পরিবার । যারা মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্ত এরা আসলে সবচাইতে বেশি অসহায় ।

তারা বলতেও পারছে না , চলতেও পারছেনা । আবার কিছু আছে একেবারেই অসহায় যাদেরকে কছে এখনও কোন খাদ্য সহায়তা পৌছেনি । এসব লােক গুলােকে খাদ্য সবার আগে প্রাধান্য দিচ্ছি । আমরা ইতিমধ্যে শরিয়তপুর জেলার দোস্ত, অসহায় ও নিম্নবিত্ত পরিবারের ঘরে এই খাদ্য সহায়তা পৌঁছে সক্ষম হয়েছি এবং এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।