শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ২০ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১১ রজব ১৪৪৪ হিজরি
শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

ডিঙ্গামানিক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ১২ মেম্বারের অনাস্থা

ডিঙ্গামানিক ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়। ছবি-দৈনিক হুংকার।

নড়িয়া উপজেলার ডিঙ্গামানিক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ সরদারের বিরুদ্ধে অনিয়ম, দুর্নীতি, অর্থ আত্মসাৎ ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ উঠেছে। চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে শরীয়তপুর জেলা ও নড়িয়া উপজেলা প্রশাসনের নিকট লিখিত অনাস্থা প্রকাশ করেছেন পরিষদের সকল সদস্যরা। ফলে ডিঙ্গামানিক ইউনিয়ন পরিষদের সকল প্রকার কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়েছে। ভোগান্তিতে পড়েছে ডিঙ্গামানিক ইউনিয়নের সাধারণ মানুষ।
পরিষদের সদস্যদের লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, দায়িত্বভার গ্রহণের পর থেকে চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ সরদার অন্যান্য সদস্যদের মতামত উপেক্ষা করে বরাদ্দকৃত টিআর, কাবিখা ও কাবিটা থেকে প্রাপ্ত বরাদ্দ একক সিদ্ধান্তে ব্যয় করেন। এ ছাড়াও নাগরিকত্ব সনদ, ওয়ারিশ ও জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনের জন্য ইউনিয়নবাসীর কাছ থেকে অর্থ গ্রহণ করে থাকেন চেয়ারম্যান। এই সকল অনিয়মের কারণে ইউনিয়নের দীর্ঘ দিনের সুনাম নষ্ট হতে চলেছে।
ডিঙ্গামানিক ইউপি সদস্য জসিম মাল ও মো. আলী ঢালী জানান, চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ সরদার স্বেচ্ছারী হয়ে উঠেছে। সংরক্ষিত সদস্য ও সাধারণ সদস্যদের সমন্বয়ে কোন সভাও তিনি করেন না। কোথা থেকে কি কি বরাদ্দ এসেছে তাও অন্যান্য সদস্যদের জানানো হয় না। তার একক সিদ্ধান্তে নামমাত্র প্রকল্প গ্রহণ করে তিনি সিংহভাগ অর্থ আত্মসাৎ করেন। এছাড়া টাকা ছাড়া পরিষদ থেকে কোন সেবা প্রদান করেন না। এতে আমাদের পরিষদের সুনাম ক্ষুন্নের পাশাপাশি আমাদেরও জনপ্রিয়তা দিন দিন কমতেছে।
ডিঙ্গামানিক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ সরদার জানান, আমি ইউপি সদস্যদের মতামতের বাহিরে কোন কিছু করি না। আমার পরিষদের সদস্যরা কি জন্য মনক্ষুন্ন হয়েছে তার খোঁজ নিয়ে দেখব।
নড়িয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হাসানুজ্জামান খোকন জানান, অভিযোগের বিষয়ে শুনেছি। কেন নিজেদের মধ্যে এমন অভিযোগ হয়েছে উভয় পক্ষকে নিয়ে বসে জানার চেষ্টা করব। বিষয়টি যেন বাড়তে না পারে সেই দিকে খেয়াল রেখে সমাধানের চেষ্টা করবো।
তবে জেলা প্রশাসক ও নড়িয়া উপজেলা প্রশাসন এই বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে রাজী হয়নি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।