শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ২০ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১১ রজব ১৪৪৪ হিজরি
শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

নড়িয়ায় চলাচলের রাস্তা দখলে বাঁধা দেওয়ায় বৃদ্ধাকে কুপিয়ে জখম, থানায় অভিযোগ

প্রতিপক্ষের হামলায় আহত বৃদ্ধা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ছবি-দৈনিক হুংকার।

শরীয়তপুরের নড়িয়ায় বাড়ির রাস্তা আটকে দেয়াল নির্মাণে বাধা দেওয়ায় সাহানা আক্তার মিনু (৬০) নামের এক নারীকে কুপিয়ে আহত করা হয়। এই ঘটনায় নড়িয়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।
শনিবার (৩১ডিসেম্বর) সকালে উপজেলার ডিঙ্গামানিক ইউনিয়নের দেওজুড়ি গ্রামে এই হামলার ঘটনা ঘটে।
ভুক্তভোগী পরিবার ও থানা সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে সাহানা আক্তার মিনুর পরিবারের সাথে নড়িয়া উপজেলার ডিঙ্গামানিক ইউনিয়নের দেওজুড়ি গ্রামের মোশারফ হাওলাদারদের সাথে বাড়ির রাস্তা নিয়ে বিবাদ চলে আসছে। রাস্তার জায়গা নিয়ে বেশ কয়েকবার উপজেলা ভূমি অফিস ও নড়িয়া থানা দুইজনকে বুজিয়ে দিয়েছেন। কিন্তু মোশারফ হাওলাদারের পরিবার তা মানে না। না মেনে তারা রাস্তায় দেয়াল করে। কিন্তু মিনু তা বাধা দেয়। এতে করে ক্ষিপ্ত হয়ে মোশারফ হাওলাদার (২৭), বিপ্লব হাওলাদার, আলেয়া বেগম, সুমি বেগম (২০), রুনু বেগম (৩৮), সাজাহান ঢালী (৫০) তার উপরে হামলা করে। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠান।
সাহানা আক্তার মিনু বলেন, ৪০ বছর ধরে এই রাস্তা দিয়ে আমরা যাতায়াত করি। মাঝেমধ্যেই রাস্তা নিয়ে মোশারফ হাওলাদার সহ তাদের পরিবারের লোকজন আমাদেরকে বাঁধা দেয়। আমরা সেই বিষয়ে বেশ কয়েকবার থানা, পুলিশ এবং প্রশাসন কে জানাই। তারা এসে বিষয়টি মীমাংসা করে দেয়। কিন্তু কিছুদিন পর পর তারা এই রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে দেওয়াল তৈরির চেষ্টা করে। আজ সকালে রাস্তাতে পাকা দেয়াল করার সময় আমি বাধা দিলে আমার উপরে দেশীয় অস্ত্রসহ মোশারফ হাওলাদারের নেতৃত্বে হামলা করা হয়। আমাকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসে।
তিনি আরো বলেন, এই রাস্তা দিয়ে কৃষি জমির ফসল নেওয়া আসা সহ কয়েকশত লোক প্রতিদিন যাতায়াত করে। ছোট ছোট কোমলমতি স্কুলের শিশুরা এই রাস্তাটি ব্যবহার করে।
এই বিষয়ে মোশারফ হাওলাদারের বাড়িতে গেলে তাদের কাউকে পাওয়া যায়নি।
নড়িয়া থানা অফিসাস ইনচার্জ বলেন, অভিযোগ তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।