রবিবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২১শে রবিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি
রবিবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

আদর্শ মানুষ গড়ার জন্য সৃষ্টি ক্বারী তোরাব আলী দারুল আরকাম মাদ্রাসা

আদর্শ মানুষ গড়ার জন্য সৃষ্টি ক্বারী তোরাব আলী দারুল আরকাম মাদ্রাসা
ক্বারী তোরাব আলী দারুল আরকাম মাদ্রাসা ভবন। ছবি-দৈনিক হুংকার।

ডামুড্যা উপজেলার সিড্যা ইউনিয়নের মদিনাবাগে আদর্শ মানুষ গড়ার কারখানা হিসেবে গড়ে উঠেছে ক্বারী তোরাব আলী আরকাম ইবতেদায়ী মাদ্রাসা। মরহুম ক্বারী তোরাব আলী এর কনিষ্ঠপুত্র আলহাজ্ব এইচ.এ রহিম ২০১৮ সালে নিজস্ব অর্থায়নে প্রতিষ্ঠা করেন ধর্মীয় শিক্ষার এ আদর্শ কারখানাটি। মাদ্রাসার কার্যক্রমে সন্তোষ্ঠ হয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর গৃহিত দেশের প্রতিটি উপজেলায় ২টি মাদ্রাসা অর্থাৎ ১০১০টি মাদ্রাসা প্রকল্পের অর্šÍভূক্ত করা হয়েছে এ প্রতিষ্ঠানটি। ইবতেদায়ী শিক্ষা ব্যবস্থার এ মাদ্রাসায় প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত মোট ১০৩ জন শিক্ষার্থী রয়েছে।
৪ জন শিক্ষকের তত্ত্বাবধানে শিক্ষা কার্যক্রমের পাশাপাশি স্বাস্থ্য পরিচর্চ্চা, বিনোদন ব্যবস্থা, অভিভাবক মায়েদের বিশ্রামাগার ও সেলাই প্রশিক্ষণ সহ নানা বন্দোবস্ত রয়েছে।
এ মাদ্রাসার শিক্ষক হাফেজ মাওলানা নাবিদ বলেন, আমাদের মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা আলহাজ্ব এইচ.এ রহিম তিল তিল করে এ মাদ্রাসাটিকে গড়ে তুলেছেন। জমি থেকে শুরু করে ভবন, শিক্ষার্থীদের শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও বিনোদন সবই তার নিজস্ব অর্থায়নে চলছে।
সিড্যা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জানান, আমাদের সমাজ থেকে নৈতিকতা উঠে গেছে। এ মাদ্রাসাটি শিশুদের নৈতিক শিক্ষার পাশাপাশি সাধারণ শিক্ষা চলমান রয়েছে। এর ফলে একজন শিক্ষার্থী আদর্শ মানুষ হিসেবে গড়ে উঠবে। সে যেখানেই যাবে তার মাঝে আল্লাহ ভীতি থাকবে।
প্রতিষ্ঠাতা আলহাজ্ব এইচ.এ রহিম জানান, আমার মরহুম পিতা একজন আদর্শ ক্বারী ছিলেন। তিনি তৎকালে মক্কা ও মদিনা থেকে শিক্ষা গ্রহন করেন। তার দোয়াতে আমি আজ এ প্রতিষ্ঠানটি করেছি। এখান থেকে শিশুরা পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত সরকারি শিক্ষা পাঠ্যক্রম অনুযায়ী শিক্ষা নিবে। সাথে তারা নৈতিক ভাবে শিক্ষা পাবে। সেই সাথে ইসলামী চরিত্র গঠন করতে পারবে। স্বাস্থ্য সুরক্ষায় নিয়মিত শরীরচর্চ্চা ও বিনোদনের আয়োজন রয়েছে মাদ্রাসায়। শিশুদের সাথে আশা মায়েরা যাতে অলস বসে সময় নষ্ট না করেন তার জন্য মহিলা সেলাই প্রশিক্ষণ কেন্দ্র রয়েছে।
তিনি আরো বলেন, ভাল সমাজ গড়ার জন্য ভাল মানুষ তৈরী করতে হবে। আমি মহান আল্লাহর ইচ্ছায় আদর্শ মানুষ গড়ার জন্য এ মাদ্রাসাটি শুরু করেছি।
এ মাদ্রাসাকে ঘিরে ভবিষ্যৎ স্বপ্ন সম্পর্কে জানতে চাইলে আলহাজ্ব এইচ.এ রহিম বলেন, দিন দিন মানুষ বাড়ছে। আমি ভবিষ্যতে এ মাদ্রাসাটিকে মাধ্যমিক শিক্ষায় উন্নিত করতে চাই। সেই সাথে মাদ্রাসাকে ঘিরে একটি কমিউনিটি সেন্টার করবো, যাতে আমাদের গ্রামের আশপাশের মানুষ বিনা খরচে তাদের সামাজিক অনুষ্ঠানাধি বিবাহ, বৌভাত ও অন্যান্য সামাজিক অনুষ্ঠান এখানে সম্পন্ন করতে পারে। সেই সাথে একটি হ্যালিপ্যাড তৈরী করার স্বপ্ন দেখছি। যাতে আমার গ্রামের মানুষ হ্যালিকপ্টারে চড়ে দ্রুত চিকিৎসা নিতে পারে।
মাদ্রাসার উন্নয়নের জন্য কারো কাছে হাত পারতে চাইনা। আল্লাহ যা দিয়েছে তার উপর নির্ভর করে ধীরে ধীরে কাজ এগিয়ে যেতে চাই। তবে কোন সহৃদয়বান ব্যক্তি সহায়তার হাত বাড়ালে তাও সাদরে গ্রহন করবো ইনশাল্লাহ।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।