রবিবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২১শে রবিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি
রবিবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

ডামুড্যায় প্রবাসীর কৃষি জমি দখল করে মাছের ঘের করার অভিযোগ

ডামুড্যায় প্রবাসীর কৃষি জমি দখল করে মাছের ঘের। ছবি-দৈনিক হুংকার।

শরীয়তপুরের ডামুড্যা উপজেলার দারুল আমান ইউনিয়নের উত্তর ডামুড্যা গ্রামের এক প্রবাসীর কৃষি জমিতে জোর-পূর্বক অবৈধভাবে মাছের ঘের খনণের অভিযোগ উঠেছে সাবেক সাব রেজিষ্টার ও সিড্যা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে। শনিবার ২৭ জুন সরে-জমিন ঘুরে দেখাযায় প্রবাসী কাইয়ুম হোসেন নিপ্পন দীর্ঘদিন যাবত প্রবাসে থাকাতে তাদের ৩১ নং সিড্যা মৌজার বিআরএস ১০৫৭ নং খতিয়ানে বিআরএস ৪১১৯, ৪০৭৪, ৪০৫৫ নং দাগের ৭৯ শতাংশ ও ২৬৯৬ নং খতিয়ানে ৪০০৫, ৪১৩১, ৪১৩২ নং দাগের সাড়ে ৭১ শতাংশ এবং ২৬৯৬ খতিয়ানে ৪০৫, ৪৩১, ৪৩২ নং দাগের সাড়ে ৩৯ শতাংশ কৃষি জমি দখল করে মাছের ঘের করেন, সাবেক সাব রেজিষ্টার ও সিড্যা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সৈয়দ নজরুল ইসলাম সাইলু।
প্রবাসী কাইয়ুম হোসেন নিপ্পন অভিযোগ করে বলেন, আমি দেশে আশার পর স্থানীয় শালিসিদের কাছে বিচার চাইলে দখলদার প্রভাবশালী হওয়াতে তিনি কোন বিচার পাননি উল্টো নিরাপত্তহীনতায় ভুগতেছেন।
স্থানীয় সালাউদ্দিন বলেন, আমরা জানি এখানে নিপ্পনদের জায়গা আছে, এখন শুনছি যে এখানে সাবেক চেয়ারম্যান সৈয়দ নজরুল ইসলাম সাইলু তাদের কাছ থেকে না জানিয়ে মাছের ঘের খণন করছে। মাছ ব্যবসায়ী আব্দুল মালেক মৃধা বলেন, আমরা চেয়ারম্যানের কাছ পুকুর লিজ নিয়েছি। এখানে কি ঝামেলা আছে সেটা আমরা জানি না, এখন শুনতেছি এখানে নাকি তার সাথে কার জমি নিয়ে কি একটা ঝামেলা আছে। যদি এমন ঝামেলা হয়, তাহলে তো আমাদের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা আছে।
ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে সাবেক সাব রেজিষ্টার ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ নজরুল ইসলাম সাইলু বলেন, কাইয়ুম হোসেন নিপ্পনের পরিবার আমার কাছ থেকে জমি বিক্রি করার কথা বলে ১৬ লক্ষ টাকা নিয়েছে। তারা আমাকে জমি দলিল করে দেওয়ার কথা। কিন্তু তারা আমাকে জমি দলিল করে দিচ্ছেনা। তাই সেখানে আমি মাছের ঘের খণন করছি।
ভুক্তভোগি প্রবাসী কাইয়ুম হোসেন নিপ্পন বলেন, আমরা প্রবাসে থাকি আর আমাদের বাড়িতে আমার অসুস্থ্য বড় ভাই আর বৃদ্ধা মা থাকে সেই সুবাধে প্রভাবশালী সাবেক সাব রেজিষ্টার ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ নজরুল ইসলাম সাইলু আমাদের কৃষি জমি কেটে মাছের ঘের করছে। এলাকায় স্থানীয় শালিসিদের জানালে সে প্রভাবশালী হওয়াতে আমরা কোন বিচার পাই নাই। উল্টো নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতেছি। আমি একজন প্রবাসী হয়ে সরকারের কাছে এর সঠিক বিচার চাই।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।