শনিবার, ২ জুলাই ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৮ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২ জিলহজ ১৪৪৩ হিজরি
শনিবার, ২ জুলাই ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

ডামুড্যায় এক কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ, থানায় মামলা

ডামুড্যায় এক কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ, থানায় মামলা

শরীয়তপুরের ডামুড্যায় এক কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে বশির বেপারী (৩৫) নামের এক যুবকের বিরুদ্ধে। এই ঘটনায় ছাত্রীর মা বাদী হয়ে ডামুড্যা থানায় মামলা করেছেন বলে জানান ডামুড্যা থানা অফিসার্স ইনচার্জ শরীফ আহমেদ।
সোমবার (২৩ মে) মামলা টি করেন ভোক্তভোগী ছাত্রীর মা। অভিযুক্ত বশির বেপারী উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের কুতুবপুর গ্রামের সুলাইমান বেপারীর ছেলে। তার দুই ছেলে রয়েছে।
পুলিশ ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত শনিবার (২১ মে) সকালে হঠাৎ ঝড় হয়। ঝড়ের পরে আম কুড়ানোর জন্য মেয়েটির মা ও বোন বাড়ির পাশে বাগানে যায়। সেদিন অসুস্থ অবস্থায় ঘরে শুয়ে ছিলেন মেয়েটি। হঠাৎ ঘরে ডুকে বশির দরজা আটকিয়ে দেয়। এরপর মেয়েটি উপরে ঝাপিয়ে পড়ে। সে ডাক চিৎকার দিলে তাকে মারধর করে। একপর্যায়ে বশির ঘর থেকে বের হয়ে যায়। এসময় পাশের ঘরের আলেয়া বানু তাকে দেখতে পেলে সে দৌড়ে সেখান থেকে পালিয়ে যায়।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকার কয়েকজন নারী ও পুরুষ বলেন, ভোক্তভোগীর পরিবার বেশ কয়েকবার থানায় যেতে চেয়েছিল কিন্তু স্থানীয়দের চাপে যেতে পারেনি। তারা টাকা দিয়ে বিষয়টি মিমাংসা করার জন্য বলে। এ বিষয়ে মেয়ের বাবা কেও কয়েক বার হুমকি দেওয়া হয়।
ভোক্তভোগীর মা বলেন, সেদিন আমার মেয়ে অসুস্থ হয়ে ঘরে শুয়ে ছিল। আমি আম কুড়ানোর জন্য বাড়ির পাশের বাগানে যাই। এর কিছুক্ষণ পরে আমার মেয়ের ডাক চিৎকার শুনে আমি দৌঁড়ে আসি। আমার মেয়ে ও পাশের ঘরের জা এর কাছ থেকে ঘটনা শুনি। এ বিষয়ে বেশ কয়েকবার স্থানীয় কয়েকজন টাকা নিয়ে আসে। টাকা নিয়ে সব কিছু মিমাংসা করে ফেলার জন্য বলে। তারা আমার মেয়ের ইজ্জত টাকা দিয়ে কিনতে চায়। গতকাল রাতে চেয়ারম্যান আমার স্বামীকে ডেকে মেয়ে কে নিয়ে কয়েকদিনের জন্য অন্য কোথাও চলে যেতে বলেন। আমি এখন নিরুপায় হয়ে থানায় এসেছি।
এ বিষয়ে প্রথমে অস্বীকার করেন ইসলামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ আবুল হোসেন মোল্লা। তিনি বলেন, সেদিন এলাকায় আমি ছিলাম না। আমি জানিনা বা আমার কাছে কেউ আসেনি। আপনি মেয়ে পরিবারকে চাপ দিচ্ছেন এ কথা বললে তিনি বলেন, আমার কাছে এসেছিল আমি থানায় যেতে বলি।
ডামুড্যা থানা অফিসার্স ইনচার্জ শরীফ আহমেদ বলেন, এই ঘটনায় ছাত্রীর মা বাদী হয়ে মামলা করেন। তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

মন্তব্য

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।