শুক্রবার, ৩রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৮শে রবিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি
শুক্রবার, ৩রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ডামুড্যায় ছেলের প্রহারে বাবা হাসপাতালে

ডামুড্যায় ছেলের প্রহারে বাবা হাসপাতালে
ডামুড্যা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহত আব্দুর রশিদ বেপারী। ছবি-দৈনিক হুংকার।

শরীয়তপুরে জমির ভাগ বুঝিয়ে না দেওয়ায় বাবাকে মারধর করার অভিযোগ উঠেছে ছেলের বিরুদ্ধে। শুক্রবার (০৫ নভেম্বর) সকালে ছেলে সোহেল বেপারী বাবাকে মারলে পরে স্থানীয়রা গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি করে। ছেলের বিচার চেয়ে মা বাদী হয়ে থানায় অভিযোগ করেন।
শুক্রবার (৫ নভেম্বর) রাতে ডামুড্যা থানায় অভিযোগ করেন আহতের স্ত্রী জায়েদা বেগম (৫০)। নির্যাতনের শিকার বাবা ডামুড্যা উপজেলার উত্তর ডামুড্যা এলাকার মৃত আমির হোসেনের ছেলে আব্দুল রশিদ বেপারী (৬৮)। তার তিন ছেলে এক মেয়ে।
অভিযুক্ত বড় ছেলে সোহেল বেপারী (৩৪) এর বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেছেন তার মা জায়েদা বেগম (৫০)। সোহেল বেপারী জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের স্বর্ণিভর বিষয় সম্পাদক।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে বড় ছেলে সোহেল বেপারী তার জায়গার ভাগ ও তার টাকা বুঝিয়ে দেওয়ার কথা বলে আসছে তার বাবা আব্দুর রশিদ বেপারীকে। এর আগেও বেশ কয়েকবার তাদের বিরোধের মিমাংশা করেছে স্থানীয়রা। শুক্রবার সকালে সোহেল তাদের বাড়িতে এসে ফেসবুক লাইভে গিয়ে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে এবং তার টাকা ও জায়গা বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য বলে। এসময় তার মা ও বাবা কে গালাগাল করতে থাকে। লাইভ বন্ধ করে তার বাবাকে ঘরের পাশেই গলা চেপে মাটিতে ফেলে দেয়। তখন তাকে এলোপাথারি কিল ঘুষি মারেন। স্থানীয়রা উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।
প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, সোহেল মাঝে মধ্যে তার বাবার সাথে খারাপ ব্যবহার করে। সোহেল বাড়িতে থাকে না। সন্তান স্ত্রী নিয়ে ডামুড্যায় থাকে। মাঝে মধ্যেই বাড়িতে এসে ঝামেলা করে। শুক্রবার সকালে এসেই ফেসবুক লাইভে এসে তারা বাবা ও মাকে দেখিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। তাদের দিয়ে জোর করে তার ব্যাপারে খারাপ কথা আদায় করার জন্য চেষ্টা করে। পরে লাইভ বন্ধ করে বাবাকে প্রথমে ধাক্কা দেয় পরে গলা টিপে ধরে আছার দেয়। সে অজ্ঞান হয়ে গেলে তাকে হাসপাতাল পাঠানো হয়।
আব্দুল রশিদ বেপারী বলেন, জীবনে সবচেয়ে বড় অন্যায় হয়েছে বলে মনে হচ্ছে আজ। নিজের ছেলের হাতে মাইর খেতে হচ্ছে। তাও আমার জায়গা জমিনের জন্য। সে আজ ফেসবুক লাইভে এসে আমাকে যাতা ভাষায় গালিগালাজ করে। পরে আমাকে ও ওর মাকে দিয়ে ওর ব্যাপারে খারাপ কথা আদায় করার চেষ্টা করে। আমি বলিনি। বার বার বুঝানোর চেষ্টা করি। আর বলি তুই চলে যা আল্লাহ সহ্য করবে না। সে আমাকে হঠাৎ এলোপাথারি কিল গুশি ও গলা টিপে ধরে। এতে করে আমি জ্ঞান হারিয়ে ফেলি।
মামলার বাদী ও সোহেলের মা জায়েদা বেগম বলেন, নিজের চোখের সামনে নিজের ছেলে তার বাবাকে মারে এর থেকে লজ্জার কি আছে। সে বড় ছেলে। আমার হাতে চুড়ি ছিল সেটা ওর দেওয়া লাইভে সেটা দেখায় আর বলে আমি নাকি নিলজ্জ কোন সরম নেই ওর জিনিস হাতে দিয়ে রেখেছে। পরে ওর বাবার সেটা দিয়ে দেওয়ার কথা বললে আমি তা খুলে দেই। কিন্তু তারপরও ও আজ আমার স্বামীর সাথে যা করছে এটার সুষ্ঠ বিচার চাই। আমরা ওর হাত থেকে বাঁচতে চাই।
সোহেল বেপারী বলেন, আমি দীর্ঘ ৫ বছর বিদেশে ছিলাম। আমার টাকা পয়সার সকল হিসাব বাবার কাছে ছিল। বাড়িতে বিল্ডিং করা হয়েছে আমার টাকায়। এখন আমাকে সে বাড়ি থেকে বের করে দিছে আমার বাবা। সে বিষয়ে বাবার কাছে জানতে চাইলে বাবা আমাকে ধাক্কা মেরে ফেলে দেয়। এ সময় আমিও জিদের বসত বাবাকে ধাক্কা দেই।
ডামুড্যা থানার এসআই মাহাবুব তালুকদার বলেন, ছেলের আঘাতে বাবা আহতের ঘটনায় ছেলের মা জায়েদা বেগম থানায় একটি সাধারণ ডাইরী করেছেন। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

মন্তব্য

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।