মঙ্গলবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৪ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি
মঙ্গলবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ভেদরগঞ্জ লাঠি দিয়ে পিটিয়ে হত্যা, ১৮ দিন পর লাশ উত্তোলন

ভেদরগঞ্জ লাঠি দিয়ে পিটিয়ে হত্যা, ১৮ দিন পর লাশ উত্তোলন
পুলিশ পাহাড়ায় লাশ উত্তোলন। ইনসেটে নুর মোহাম্মদ। ছবি-দৈনিক হুংকার।

শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার নুর মোহাম্মদ খালাসী (৩০) নামের এক ট্রলারচালকের লাশ দাফনের ১৮ দিন পর কবর থেকে উত্তোলন করা হয়েছে। ট্রলারচালকে বরযাত্রীরা পিটিয়ে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

শুক্রবার (২০ আগস্ট) সকাল ১০টায় বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশে উপজেলার চরসেন্সাস ইউনিয়নের চরফিলিজ হাওলাদার কান্দি গ্রাম থেকে লাশটি উত্তোলন করা হয়।

উত্তোলনের সময় শরীয়তপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বাসিত সাত্তার, গোসাইরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা সোয়েব আলীসহ পুলিশ সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

জানা গেছে, ১১ আগস্ট নিহত নুর মোহাম্মদ খালাসীর বাবা সিডু খালাসী শরীয়তপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালতে একটি পিটিশন মামলা করলে বিচারক ২০ আগস্টের মধ্যে মরদেহ উত্তোলনসহ প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দেন। এজাহার ও স্থানীয় সূত্র জানায়, গত ১ আগস্ট সকাল ৮টার দিকে ভেদরগঞ্জ উপজেলার আরশিনগর টেকের বাজার ঘাট থেকে নুর মোহাম্মদ বরযাত্রী নিয়ে যাত্রা শুরু করে। পথিমধ্যে ট্রলার চরে ঠেকে যায়। তখন নুর মোহাম্মদ বর পক্ষের লোকজনকে ট্রলার থেকে নামতে বলেন। বর পক্ষের লোকজন নামতে অসম্মতি জানালে নুর মোহাম্মদের সাথে বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে বর পক্ষের চরফিলিজ এলাকার ওয়ালিদ মাদবর (৩৫), শহিদুল্লাহ মোল্লা (৪৫), শুকুর আলী মালত (৪৮) সহ বেশ কয়েকজন নুর মোহাম্মদকে বাঁশ ও লাঠি দিয়ে পেটাতে থাকলে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান। কিন্ত হৃদযন্ত্র ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা গেছেন বলে তড়িঘড়ি করে ২ আগস্ট বেলা ১১টার দিকে দাফন করা হয়। এ ঘটনায় ওয়ালিদ মাদবর, শহিদুল্লাহ মোল্লা, শুকুর আলী মালতসহ ১০ জনকে ও অজ্ঞাত আরও ৫/৬ জনকে আসামী করে নিহত নুর মোহাম্মদের বাবা সিডু খালাসী শরীয়তপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমমী আদালতে মামলা করেন।

নিহত নুর মোহাম্মদ খালাসীর স্ত্রী খোরশেদা বেগম বলেন, আমার স্বামীকে বাঁশ ও লাঠি দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করেছে ওয়ালিদ মাদবর, শহিদুল্লাহ মোল্লা, শুকুর আলী মালতরা। পরে তারা বলে আমার স্বামী নাকি হৃদযন্ত্র ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা গেছেন। তারা মিথ্যা বলেছেন। আমি এ হত্যার বিচার চাই।

গোসাইরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা সোয়েব আলী বলেন, আদালতের নির্দেশে ১৪ আগস্ট থানায় হত্যা মামলা হয়েছে। শুক্রবার সকালে নুর মোহাম্মদ এর লাশ উত্তোলন করা হয়। উত্তোলনের পর ময়নাতদন্তের জন্য লাশ শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এর আগে ১১ আগস্ট নিহত নুর মোহাম্মদ খালাসীর বাবা সিডু খালাসী শরীয়তপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালতে একটি পিটিশন মামলা করলে বিচারক ২০ আগস্টের মধ্যে মরদেহ উত্তোলনসহ প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

মন্তব্য

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।