মঙ্গলবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৪ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি
মঙ্গলবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

করোনায় মৃত্যুর মিছিলে দ্বিতীয় স্থানে ভেদরগঞ্জ উপজেলা

Auto Draft
ডামুড্যা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভবন। ছবি-দৈনিক হুংকার।

শরীয়তপুর জেলায় করোনার আক্রান্তের সংখ্যা দিনদিন বেড়েই চলেছে। বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও।তার মধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়ার সংখ্যায় দ্বিতীয় স্থান অধিকার লাভ করেছে ভেদরগঞ্জ উপজেলা। এই পর্যন্ত উপজেলাটিতে করোনা পজিটিভ নিয়ে মৃত্যু বরণ করেছে ৯ জন। আক্রান্তে সংখ্যাও কিছুটা বেশি।

শরীয়তপুর জেলা ও উপজেলা স্বাস্থ্য প্রশাসনের তথ্য মতে, করোনা মহামারিতে জেলায় মোট ৫৪ জন মৃত্যু বরণ করেছেন। যার মধ্যে প্রথমে রয়েছে নড়িয়া উপজেলায় সেখানে এপর্যন্ত মৃত্যু বরণ করে ২৬ জন। তার পরে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ভেদরগঞ্জ উপজেলা,এখানে ৯ জন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরণ করেছেন। গত ২৪ ঘন্টায় ৯৯ জন করোনা পজিটিভ এসেছে। আরও জানা যায়,এবং গত ৮ ই মার্চ ২০২০ থেকে গত ২৯ জুলাই ২০২১ সাল অবধি উপজেলাটিতে ৭৯৬ জনের করোনা পজিটিভ এসেছে। সেখানেও কিন্তু উপজেলাটি আক্রান্তের দিক দিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় সুস্থ হয়েছেন ২৪ জন এবং মহামারি শরু থেকে উপজেলাটিতে সুস্থ হয়েছেন ৫১৬ জন।

ভেদরগঞ্জ উপজেলার বিশিষ্ট প্রবীণ লেখক মোঃ মোশাররফ হোসেন বলেন, করোনার তান্তব লিলা যেন বিপুল সঙ্কা,বিষাদ এবং মৃত্যুর মিছিলের সামিল।সংক্রমণ চক্রবৃদ্ধির ভয়াবহ চিত্র দেখে বারবার চিৎকার করে বলে উঠি এর পরিত্রাণ একমাত্র বিধির বিধানেই আবদ্ধ। তরপরেও মানুষ হিসাবে আমাদের ভেদরগঞ্জ বাসীর উচিৎ করোনার এই ভয়াল থাবা থেকে বাচার তাগিদে প্রত্যককেই সচেতণতার মুল মন্ত্রে সামিল হয়ে,বেশি নড়াচড়া না করে যার যার অবস্থানে থাকা এবং মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলা।তাহলেই ভেদরগঞ্জ উপজেলাবাসীর পক্ষে সম্ভব ভয়াবহ করোনার প্রকোট থেকে রক্ষা পাওয়া।

এ বিষয় ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার তানভীর আল নাসীফ বলেন, উপজেলায় আগের তুলনায় করোনা সংক্রমণ ক্রমেই বেড়ে চলছে। তবে সংক্রমণ রুখতে সরকারি বিধি নিষেধ স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলা ও বাহিরে মাস্ক পড়ার দরকার।আমরা জেলা ও উপজেলা প্রশাসন থানা পুলিশের সহযোগীতায় প্রতিনিয়ত মোড়ে মোড়ে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করছি। অযথা কেউ বাহিরে ঘুরা ঘুরি করলে জেল জরিমানা করছি। কেউ কেউ সচেতন নাহয়ে অবাদে চলছে, আসলে তারাই সংক্রমণের শিকার বেশি হচ্ছে। তাই আমাদের নিজেদের সচেতন হওয়াটাও জরুরী।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা, ডাঃ মেঘনাদ শাহা বলেন,করোনার টিকা দেওয়ার কার্যক্রম আমাদের এখানে সার্বক্ষণিক চালু রয়েছে। মানুষকে আমাদের পক্ষ থেকে টিকা নেওয়ার জন্য আহবান জানাচ্ছি। টিকা নেওয়ার পরেও সরকারি বিধি নিষেধ ও স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে হবে। ঘরে থাকতে হবে। অযথা বাহিরে বের না হওয়া এবং জরুরী প্রয়োজনে বাহিরে বের হলে মাস্ক পরিধান করে বের হলে সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার ক্রমেই কমে আসবে। এ বছর করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৫ জন মৃত্যু বরণ করেছে। তবে ঢাকা থেকে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরণ করে ২ জন এরা ভেদরগঞ্জ বাসী।প্রথমিকভাবে জ্বর,ঠান্ডা কাশি দেখা দিলে ঘরে বসেও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী সেবার হট লাইন নাম্বারে কল করলেই চিকিৎসা সেবা চালু রয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

মন্তব্য

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।