রবিবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২১শে রবিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি
রবিবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

তারাবুনিয়া স্টেশন বাজার রক্ষায় ৯০ লক্ষ টাকা দিলেন উপমন্ত্রী শামীম

তারাবুনিয়া স্টেশন বাজার রক্ষায় জিও ব্যাগ ফেলা হচ্ছে। ছবি-দৈনিক হুংকার।

শরীয়তপুর জেলার ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার উত্তর তারাবুনিয়া চেয়ারম্যান স্টেশন বাজার রক্ষায় ৯০ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন পানি সম্পদ উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম এমপি। ভাঙ্গন শুরু হওয়ার একদিন পরেই এই বরাদ্দ মঞ্জুর করেন।
গত ২৯ জুন দুপুরে পদ্মানদীর আর্কষিক ভাঙ্গনে ১৬টি দোকান ক্ষতিগ্রস্থ হয়। এর মধ্যে ৫টি দোকান সম্পুর্নরূপে নদীগর্ভে তলিয়ে গেছে। বিষয়টি জানার পরপরই শরীয়তপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য পানি সম্পদ উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম ভাঙ্গন প্রতিরোধের জন্য জিও ব্যাগ ফেলতে ৩টি প্যাকেজে ৯০ লক্ষ টাকা মঞ্জুর করেন।
উত্তর তারাবুনিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ইউনুস সরকার বলেন, উত্তর তারাবুনিয়া চেয়ারম্যান স্টেশন বাজার হঠাৎ করেই নদীভাঙ্গন শুরু হয়। নদীগর্ভে বিলিন হয়ে যায় চেয়ারম্যান স্টেশন বাজারের বেশ কিছু দোকান। আমি সংবাদ শোনার সাথে সাথেই পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম, এমপি মহোদয়কে ফোন করে নদীভাঙ্গার কথা অবহিত করি এবং সাথে সাথেই মাননীয় উপমন্ত্রী মহোদয়ের নির্দেশে শরীয়তপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান হাবিব ও ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার তানভীর আল নাসীফ ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শনে আসেন। মাননীয় উপমন্ত্রী ভাঙ্গন শুরু হওয়ার ২৪ ঘন্টার মধ্যেই জিও ব্যাগের ডাম্পিং করে নদী ভাঙ্গন রোধের ব্যবস্থার গ্রহনের জন্য ৯০ লক্ষ টাকা বরাদ্দ করেন। আজ বুধবার সকালে চেয়ারম্যান স্টেশন বাজারের নদীর তীর রক্ষায় ৩টি পয়েন্টে জিও ব্যাগ ডাম্পিংয়ের কাজ শুরু হয়েছে। তাৎক্ষনিক নদী ভাঙ্গন রোধের ব্যবস্থা নেওয়ায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও পানি সম্পদ উপমন্ত্রী মহোদয়ের প্রতি উত্তর তারাবুনিয়াবাসী’র পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা জানাই।
শরীয়তপুর জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান হাবিব বলেন, গত ২৯ জুন দুপুর ১টার দিকে পদ্মার পানি বৃদ্ধির সাথে সাথে তারাবুনিয়া স্টেশন বাজারের ৩টি স্থানে ব্যাপক ভাঙ্গন শুরু হয়েছে। এ এলাকার সংসদ সদস্য, পানি সম্পদ উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম সাহেব এর নির্দেশে আমরা ভাঙ্গন এলাকা পরির্দশ করে চাহিদাপত্র দেয়ার সাথে সাথে ৩ টি প্যাকেজের জন্য ৯০ লক্ষ টাকা বরাদ্দ করেন।
ভেদরগঞ্জে উপজেলা নির্বাহী অফিসার তানভীর আল নাসীফ বলেন, ভাঙ্গনের সংবাদ শোনার ২৪ ঘন্টা ব্যবধানে মাননীয় পানি সম্পদ উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম মহোদ্বয়ের নির্দেশে জিও ব্যাগ ফেলার কাজ শুরু হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ত্রাণ সহায়তা দেয়া হয়েছে। অপর দিকে স্থানীয় চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ইউনুস সরকার ব্যক্তিগত ভাবে ৫ বস্তা চাল বিতরণ করেছেন।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।