শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ২০ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১১ রজব ১৪৪৪ হিজরি
শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

ভেদরগঞ্জ উপজেলা মডেল মসজিদ উদ্বোধন

ভেদরগঞ্জে মডেল মসজিদের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দোয়া ও মোনাজাত করছেন উপস্থিত অতিথিবৃন্দ। ছবি-দৈনিক হুংকার।

দেশের প্রতিটি জেলা-উপজেলায় মডেল মসজিদ ও ইসলামী সাংস্কৃতিক কেন্দ্র স্থাপন প্রকল্পের আওতায় দ্বিতীয় পর্যায়ে সোমবার (১৬ জানুয়ারী) ৫০টি মডেল মসজিদ উদ্বোধনের অংশ হিসেবে শরীয়তপুর জেলার ভেদরগঞ্জ উপজেলা মডেল মসজিদ এর শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে। রাজধানীর ওসমানী মিলনায়তনে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এর উদ্বোধন করেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
উদ্বোধন উপলক্ষে ভেদরগঞ্জ উপজেলা মডেল মসজিদ মিলনায়তনে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবদুল্লাহ আল মামুন, সহকারি কমিশনার (ভূমি) মোঃ ইমামুল হাফিজ নাদিম, সরকারি এমএ রেজা কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ আনোয়ার হোসেন, ভেদরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাস্টার তোফাজ্জল হোসেন মোড়ল, যুদ্ধকালিন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার হাজি আবদুল মান্নান রাড়ী, উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ ফাতেমা ইসলাম, উপজেলা মৎস্য অফিসার মোঃ নজরুল ইসলাম, প্রকল্পের ঠিকাদার ও উপজেলা আওয়ামীলীগ এর সাধারণ সম্পাদক হাজি আবদুল মান্নান হাওলাদারসহ বীর মুক্তিযোদ্ধা, শিক্ষক, সাংবাদিক, আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার ব্যক্তিবর্গ।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৪ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে ইসলামী মূল্যবোধের উন্নয়ন এবং ইসলামী সংস্কৃতি বিকাশের উদ্দেশ্যে প্রতিটি জেলা-উপজেলায় একটি করে মডেল মসজিদ ও ইসলামী সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী বাংলাদেশের ইতিহাসে এই প্রথম কোনো সরকার দেশীয় অর্থায়নে একসঙ্গে ৫৬৪ টি মডেল মসজিদ ও ইসলামী সাংস্কৃতিক কেন্দ্র স্থাপন করতে যাচ্ছে। আজ দ্বিতীয় পর্যায়ের ৫০টি মডেল মসজিদের উদ্বোধন করলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী।
তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশে সাড়ে তিন লাখের বেশি মসজিদ আছে। এসব মসজিদের বেশির ভাগই স্থানীয় জনগণের আর্থিক সহায়তায় প্রতিষ্ঠিত ও পরিচালিত হচ্ছে। বাংলাদেশের জেলা-উপজেলা পর্যায়ে আধুনিক সুবিধা সংবলিত দৃষ্টিনন্দন মসজিদ বা ইসলামী স্থাপনা নেই বললেই চলে। এসব পরিস্থিতি বিবেচনায় বর্তমান সরকার দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একটি করে মডেল মসজিদ নির্মাণের উদ্যোগ নেয়।
নির্মিত প্রতিটি মডেল মসজিদ ও ইসলামী সাংস্কৃতিক কেন্দ্র ৪৩ শতাংশ জায়গার ওপর তিন ক্যাটাগরিতে নির্মিত হচ্ছে। এর মধ্যে জেলা ও সিটি করপোরেশন পর্যায়ে চারতলা, উপজেলা পর্যায়ে তিনতলা এবং উপকূলীয় এলাকায় চারতলা মডেল মসজিদ নির্মাণ করা হচ্ছে। ‘এ’ ক্যাটাগরিতে ৬৪টি জেলা শহর এবং তিনটি সিটি করপোরেশনে পাঁচটিসহ মোট ৬৯টি চারতলা মডেল মসজিদ নির্মিত হচ্ছে। ‘বি’ ক্যাটাগরিতে উপজেলা পর্যায়ে ৪৭৯টি (নবগঠিত চারটি উপজেলাসহ) এবং ‘সি’ ক্যাটাগরিতে উপকূলীয় এলাকায় চারতলাবিশিষ্ট (নিচতলা ফাঁকা থাকবে) ১৬টি মডেল মসজিদ নির্মাণ করা হচ্ছে। মসজিদগুলোতে নারী ও পুরুষের জন্য পৃথক অজু ও নামাজকক্ষ, ইমাম প্রশিক্ষণকেন্দ্র, হেফজখানা, গণশিক্ষা কেন্দ্র, গবেষণাকেন্দ্র, পাঠাগার ও মরদেহ গোসলের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।