রবিবার, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১৫ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৬ রজব ১৪৪৪ হিজরি
রবিবার, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

ভেদরগঞ্জে পাসের হারে এসইএসডিপি, জিপি-এ শীর্ষে রেবতী মোহন

ভেদরগঞ্জে এসএসসি’র ফল প্রকাশে উল্লাসিত শিক্ষার্র্থীরা। ছবি-দৈনিক হুংকার।

২০২২ সালের প্রকাশিত এসএসসি পরীক্ষার ফলে পাসের হারে শীর্ষে রয়েছে ভেদরগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ তারাবুনিয়া ইউনিয়নের এসইএসডিপি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় শতভাগ পাস করে শীর্ষে অবস্থান করছে। আর জিপিএ প্রাপ্তের শীর্ষে আছে রামভদ্রপুর রেবতী মোহন উচ্চ বিদ্যালয়।
ভেদরগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানাগেছে, প্রত্যান্ত চরের অবস্থিত দক্ষিণ তারবুনিয়া এসইএসডিপি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এবার ২৫ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে ২৫ জনই পাস করেছে। জিপিএ পেয়েছে ২ জন। পাসে হারে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে মহান মুক্তিযুদ্ধে জীবন উৎসর্গকারী শহীদ বুদ্ধিজীবী ডাঃ হুমায়ুন কবির এর নামে প্রতিষ্ঠিত শহীদ বুদ্ধিজীবী ডাঃ হুমায়ুন কবির উচ্চ বিদ্যালয়।
এ বছর এ বিদ্যালয় থেকে ১২৫ জন পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে ১২১ জন পাস করে। এর মধ্যে জিপিএ পেয়েছে ১৭ জন। তাদের পাসের হার ৯৬ ভাগ। তৃতীয় অবস্থানে আব্দুল গনি উচ্চ বিদ্যালয় সখিপুর তাদের ৫০ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৪৭ জন উত্তীর্ণ হয়েছে। জিপিএ পেয়েছে ১০ জন। পাসের হার ৯৪ ভাগ। চতুর্থ স্থানে আছে চরভয়রা উচ্চ বিদ্যালয় তাদের ২০০ জন পরীক্ষা দিয়ে ১৮৬ জন উত্তীর্ণ হয়েছে। জিপিএ পেয়েছে ১২ জন। পাসের হার ৯২.০৫ ভাগ। চর ফিলিজ জয়নব উচ্চ বিদ্যালয়ে ৯১.৬৭ ভাগ পাস করে ৫ম স্থানে আছে। তাদের জিপিএ পেয়েছে ২জন। এর পরে আছে নারায়নপুর ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয় তাদের পাস করেছে ৯০.২০ ভাগ। এর পরে রয়েছে সাজনপুর ইসলামিয়া উচ্চ বিদ্যালয় তাদের পাস করেছে ৮৯.৬০ ভাগ, জিপিএ পেয়েছে ১০ জন। এর পরেই আছে চরকুমারিয়া উচ্চ বিদ্যালয় তাদের পাস করেছে ৮৭.৫০ ভাগ, জিপিএ পেয়েছে ১০ জন। চরভাগা উচ্চ বিদ্যালয়ের পাসের হার ৮৭.৫০ তবে তাদের কেউ জিপিএ পায়নি। রাড়িকান্দি হাজিবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের পাসের হার ৮৭.২১ ভাগ। তাদের জিপিএ প্রাপ্তির সংখ্যা ৩ জন। চরভাগা বঙ্গবন্ধু আর্দশ উচ্চ বিদ্যালয়ে থেকে পাস করেছে ৮৫.১১ ভাগ, জিপিএ পেয়েছে ৯ জন। দক্ষিণ সখিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের পাসের হার ৮৪.৪০ ভাগ, জিপিএ পেয়েছে ১ জন। জহুরা কাদের উচ্চ বিদ্যালয়ের পাসের হার ৮৪.৩১ ভাগ। রামভদ্রপুর রেবতী মোহন উচ্চ বিদ্যালয়ের পাসের হার ৮৪.১৭। তবে উপজেলার মধ্যে সর্বাধিক ২৩ জন জিপিএ পেয়েছে। এর পরে আছে চরচান্দা উচ্চ বিদ্যালয় তাদের পাস করেছে ৮৩.৯০ ভাগ। জিপিএ পেয়েছে ৪ জন। মনোয়ার সিকদার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পাসের হার ৮৩.৩৩ ভাগ। মহিষার দিগম্বরী স্কুল এন্ড কলেজ এর পাসের হার ৮২.৯৮ ভাগ, জিপিএ পেয়েছে ২ জন। ভেনপা নাসির উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ে পাসের হার ৮১.০৮ ভাগ, জিপিএ পেয়েছে ৪ জন। আজিজুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয়ের পাসের হার ৮০.২১ ভাগ, জিপিএ পেয়েছে ৩ জন। এবিসি মাধ্যমিক বিদ্যালয়েরে পাসের হার ৮০.০০। সাজনপুর বালিকা বিদ্যালয়ের পাসের হার ৭৯.৩২ ভাগ, তাদের জিপিএ পেয়েছে ১জন। তারাবুনিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের পাসের হার ৭৮.৮২ ভাগ, জিপিএ পেয়েছে ৪ জন। সখিপুর ইসলামিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের পাসের হার ৭৭.৮৬ ভাগ, জিপিএ পেয়েছে ১৪ জন। কিরণ নগর আর্দশ উচ্চ বিদ্যালয় পাসের হার ৭৫.৫৬ ভাগ, জিপিএ পেয়েছে ৭ জন। দুলারচর উচ্চ বিদ্যালয়ের পাসের হার ৭২.০০ ভাগ। ভেদরগঞ্জ হেড কোয়াটার পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ এ পাসের হার ৭১.৫৪ ভাগ, তাদের জিপিএ পেয়েছে ১৯ জন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।