শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

ভেদরগঞ্জে প্রণোদনার বীজ ও সার বিতরণ

ভেদরগঞ্জে প্রণোদনার সার ও বীজ বিতরণ করছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ আল মামুন। ছবি-দৈনিক হুংকার।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মোতাবেক প্রতি ইঞ্চি জায়গা ব্যবহারের লক্ষ্যে এবং নতুন জাত সম্প্রসারণের মাধ্যমে ফলন বৃদ্ধির উদ্দেশ্যে শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলায় ২০২২-২৩ অর্থ বছরে রবি মৌসুমে ২ হাজার ৫৯৮ জন ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকের মাঝে বিনামূল্যে উফশী জাতের সরিষা, খেসারী, মুগ, পেঁয়াজ, মসুর, সূর্যমুখী, ভূট্টা, গম বীজ ও সার বিতরণ করা হয়েছে। তারই অংশ ১৬ নভেম্বর (বুধবার) দুপুর ১২ টায় উপজেলা পরিষদ ক্যাম্পাসে ৪টি ফসলের সরিষা (১৪০০ জন), মসুর ( ৭০ জন), খেসারী (৭০) জন এবং ৩০ জন কৃষককে পেঁয়াজ বীজ ও সার বিতরণ করা হয়। এ ছাড়াও ৬৫০ জনের মাঝে গম, ২০০ জনের মাঝে ভূট্রা ও ২০ জনের মাঝে সূর্যমুখির বীজ ও সার বিতরণ করা হবে।
উপজেলা কৃষি অফিসারের নতুন কার্যালয় মাঠে উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ ফাতেমা ইসলাম এর সভাপতিত্বে উপজেলা কৃষি অফিসারের কার্যালয় কর্তৃক আয়োজিত বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ আল মামুন, অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ হুমায়ুন কবির, উপ-সহকারী কৃষি অফিসার কায়সার আহম্মেদ রানা, মামুনুর রশিদ হাসিব, আবু হানিফসহ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ও ব্লকের উপসহকারী কৃষি অফিসারগণ উপস্থিত ছিলেন।
পৌর কাউন্সিলরগণ, ইউপি সদস্যবৃন্দ, ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দসহ কৃষক কৃষাণীগণ উপস্থিত ছিলেন।
এই বার প্রণোদনা কর্মসূচিতে প্রতিজন কৃষক সরিষার জন্য ১ কেজি বীজ, ১০ কেজি ডিএপি সার, ১০ কেজি করে এমওপি সার পাচ্ছেন। খেসারীর জন্য ৮ কেজি বীজ, ১০ কেজি ডিএপি, ৫ কেজি এমওপি সার, পেঁয়াজের জন্য প্রতিজন কৃষক ১ কেজি বীজ, ১০ কেজি ডিএপি, ১০ কেজি এমওপি সার, মসুর এর জন্য ৫ কেজি বীজ, ১০ কেজি ডিএপি এবং ৫ কেজি এমওপি সার পাবেন যাতে করে এক বিঘা জমিতে আবাদ করতে পারেন। প্রণোদনা কর্মসূচির বিতরণ উপলক্ষে বক্তরা কৃষি বান্ধব সরকারের কৃষি উন্নয়নে নানাবিধ কর্মসূচির ভুয়সী প্রশংসা করেন এবং কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধিতে কৃষি বিভাগের প্রশাংসা করে কৃষক কে অধিক পরিমাণে ফলনে আন্তরিক ভাবে কাজ করার আহবান জানান।
প্রধান অতিথি উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, জাতির পিতার কন্যা কৃষি বান্দব মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনে করেন কৃষি বাংলাদেশের অর্থনীতির মূল ভিত্তি। দেশের মোট জনসংখ্যার অর্ধেকেরও বেশি মানুষ এখনও প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে কৃষির ওপর নির্ভরশীল। অনেক ধরণের প্রতিকূলতা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলা করেও বাংলাদেশ বিগত ৫০ বছরে খাদ্য উৎপাদনে দৃষ্টান্তমূলক অগ্রগতি অর্জন করেছে। আর ভবিষ্যৎ ঝুঁকি মোকাবেলায় আমাদের সামনে সম্ভনা হচ্ছে কৃষি। তাইতো মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রতি ইঞ্চি জমিকে চাষাবাদের আওতায় নিয়ে আসার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। আমরা ও আমাদের জেলা প্রশাসক মোঃ পারভেজ হাসান স্যারের নেতৃত্বে কৃষি বিভাগের সহযোগিতায় কাজ করে যাচ্ছি। ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার চাহিদার বিপরীতে জিডিপিতে যে গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশের কৃষি তা একটা বিশ্ব অঙ্গনে বড় অর্জন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।