মঙ্গলবার, ৩রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৯শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪শে জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি
মঙ্গলবার, ৩রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সখিপুরের মাদ্রাসা ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ১

সখিপুরের মাদ্রাসা ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ১

ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার ডিএম খালী ইউনিয়নে ৬ শ্রেণীর মাদ্রাসা ছাত্রীকে ধর্ষনের অভিযোগে জয়নাব (১৬) কে আটক করেছে সখিপুর থানা পুলিশ।

অভিযোগে জানাযায়, গত ১৫ জুন দুপুরে ডিএমখালী ইউনিয়নের আফতাব উদ্দিন সরকার কান্দি গ্রামে কলা বাগানে তুলে নিয়ে গামছা দিয়ে মুখ বেঁধে মাদ্রাসার ষষ্ঠ শ্রেণির ঐ ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।

স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য শিশু মেয়েটিকে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা না করার জন্য ধর্ষিতার পরিবারকে ধর্ষকের পরিবারের লোকজন বিভিন্ন ভাবে হুমকি দিচ্ছে বলে জানায় ভুক্তভোগীরা ।
মাদ্রাসা ছাত্রীর পরিবার ও স্থানীয় ভাবে জানা যায়, সোমবার দুপুরে মেয়েটি গোসল করার জন্য বাড়ি থেকে খালের দিকে যাওয়ার সময় পাশের মোহাম্মদ উল্লাহ সরকার কান্দি গ্রামের ইয়াছিন মালের ছেলে জয়নাব মাল পূরবে থেকে ওত পেতে থেকে মেয়েটিকে মুখ চেপে পাশের কলা বাগানে নিয়ে যায়। সেখানে গামছা দিয়ে মুখ বেঁধে শিশুটিকে ধর্ষণ করে । পরে তাকে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। মেয়েটি বাড়ি ফিরে ঘটনাটি সবাইকে জানিয়ে অজ্ঞান হয়ে যায়। বিষয়টি প্রথমে জয়নাবের পরিবার, পরে স্থানীয় ইউনিয়নের সদস্যসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জানান। এ ঘটনায় জ‌ড়িত‌দের বিচার করার আশ্বাস দি‌য়ে নীরব ভুমিকা পালন করছেন ইউপি মেম্বার শাহালম পাজরী।

তিনি ও স্থানীয় আরেক মাতাব্বর মিলে বিষয়‌টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন বলেও অভিযোগ করে শিশুর পরিবার । কিন্তু আশ্বাসের দুইদিন পে‌রি‌য়ে গে‌লেও কিছুই করেননি মেম্বার। উল্টো ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে। মে‌য়ে‌টির বাবা ক্ষোভ প্রকাশ করে কান্না জড়িত কন্ঠে জানান, আমার মে‌য়েকে জয়নাব তু‌লে নি‌য়ে ধর্ষন ক‌রেছে। মেম্বারকে জা‌নি‌য়েও কোন কিছু হয় নাই। পরে বাধ্য হয়ে থানায় গিয়ে অভিযোগ করি। পুলিশ ধর্ষককে আটক করেছে।

ডিএমখালি ইউনিয়নের ৮ নং ওয়াড়ের সদস্য (মেম্বার) শাহালম পাজরী বলেন, শুনেছি ধর্ষণ করা হয়েছে। দুই পক্ষই গরিব। আমরা স্থানীয়ভাবে বসে সমাধানের চেষ্টা করেছি। আমার কথা না শোনায মেয়েটি বাবা সখিপুর থানায় অভিযোগ করছে।

ডিএমখালি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাস্টার জসিম মাদবর বলেন,এ বিষয়ে আমার কিছুই জানা নেই। বিষয়টি এখনি জানার চেষ্টা করছি।

সখিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ও‌সি) এনামুল হক বলেন, আমি ঘটনার ২ দিন পর একজন সাংবাদিকের মাধ্যমে সংবাদ পেয়ে ক্ষতিগ্রস্থদের ডেকে মামলা নিয়েছি। এ ঘটনায় অভিযুক্ত জয়নাবকে আটক করি। শিশু মেয়েটিকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

মন্তব্য

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।