মঙ্গলবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৪ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি
মঙ্গলবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

স্রোতের কারণে শরীয়তপুর-চাঁদপুর নৌপথে ফেরি চলাচল বিঘ্ন

স্রোতের কারণে শরীয়তপুর-চাঁদপুর নৌপথে ফেরি চলাচল বিঘ্ন
ভেদরগঞ্জ উপজেলার আালুর বাজারে ফেরি পারাপারের অপেক্ষায় যানজট। ছবি-দৈনিক হুংকার।

উজানের পানি নামতে শুরু করায় গত দু’দিনে পদ্মা-মেঘনার পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। সেই সঙ্গে তীব্র হয়েছে নদীর স্রোত। এতে করে শরীয়তপুর-চাঁদপুর নৌপথে ফেরি চলাচলে বিঘ্ন হচ্ছে। এই নৌপথ পারি দিতে অতিরিক্ত পাঁচ কিলোমিটার পথ ঘুরে চলাচল করতে হচ্ছে ফেরিগুলোকে। ফেরি চলাচলের বিঘ্ন হওয়ায় শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার আলুর বাজার ফেরিঘাটে পারাপারের অপেক্ষায় আছে চার শতাধিক পন্য ও যাত্রীবাহী যানবাহন।
বাংলাদেশ অভ্যন্তরিন নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিসি) সূত্র জানায়, শরীয়তপুর-চাঁদপুর নৌ-পথে যানবাহন পারাপারের জন্য ছয়টি ফেরি রয়েছে। মেঘনা নদীতে স্রোত বৃদ্ধি পাওয়ায় কিশোরী, কামিনি ও কস্তুরি ফেরিগুলো স্রোতের বিপরীতে চলাচল করতে পারছে না।
শরীয়তপুরের নরসিংহপুর থেকে ফেরিগুলো পাঁচ কিলোমিটার উজানে গিয়ে চাঁদপুরের দিকে যাচ্ছে। এতে আড়াই থেকে তিন ঘণ্টা সময় বেশি লাগে। ফেরি পারাপার অব্যাহত থাকলে প্রতিদিন পাঁচ শতাধিক গাড়ির জায়গায় ৩০০ গাড়ি পারাপার করতে হচ্ছে। ফলে ঘাটের উভয় পাড়েই যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।
ঘাটে আটকে পড়া ট্রাকচালক লোকমান হোসেন বলেন, দৌলদিয়া-পাটুরিয়া ঘাটে যানজট। বাংলাবাজার-শিমুলিয়া ঘাট এখন বন্ধ থাকায় আমাদের দুর্ভোগ অনেক বেড়েছে। তাই নরসিংহপুর আলুবাজার ঘাট হয়ে চট্টগ্রামের দিকে রওনা হই। এখানেও স্রোতের তীব্রতায় ফেরি চলাচল স্বাভাবিক নেই। ফলে সময় ঠিক রেখে গন্তব্যে যেতে পারছি না।
ঘাটের ইজারাদার ও চরসেনসাস ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিতু মিয়া জানায়, দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের ঢাকা ও চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন এলাকায় যাতায়াতের জন্য পদ্মা ও মেঘনা নদীর ফেরিঘাটগুলো গুরুত্বপূর্ণ। এ নৌপথে অনেক পুরাতন ও দুর্বল ফেরি চলাচল করে। ফলে বর্ষাকালে স্রোতের তীব্রতা বাড়লেই ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে।
বিআইডব্লিউটিসির নরসিংহপুর ফেরিঘাটের ব্যবস্থাপক আব্দুল মোমেন বলেন, স্রোতে শরীয়তপুর-চাঁদপুর রুটে ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। এছাড়া বাংলাবাজার-শিমুলিয়া ঘাট বন্ধ থাকায় যানবাহনের চাপ বৃদ্ধি পেয়েছে। তাই যানবাহন পারাপারে সমস্যা হচ্ছে। তবে স্রোতের তীব্রতা কমলে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

মন্তব্য

দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।