বৃহস্পতিবার, ২৬শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১১ই রবিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি
বৃহস্পতিবার, ২৬শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

সাতকানিয়া পৌরসভা মেয়র যোবায়ের তার প্রতিশ্রুতির ৯০ ভাগ বাস্তবায়ন করেছেন

সাতকানিয়া পৌরসভা মেয়র যোবায়ের তার প্রতিশ্রুতির ৯০ ভাগ বাস্তবায়ন করেছেন
মেয়র মোহাম্মদ যোবায়ের। ফাইল ফটো।

সাতকানিয়া পৌরসভা মেয়র মোঃ যোবায়ের বলেছেন, আমি মেয়র হিসেবে আমার জনগনকে দেয়া প্রতিশ্রুতির ৯০ ভাগ ইতিমধ্যেই বাস্তবায়ন করেছি। আমি জাতির জনকের কন্যা দেশরত্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন অভিযাত্রায় সমান তালে আমাদের পৌরসভাকে এগিয়ে নিতে প্রাণপন কাজ করেছি। আমি বিশ্বাস করি আমাদের সম্মানিত ভোটারগন আমার সেবায় তৃপ্ত ও ধন্য।
তিনি বলেন, সাতকানিয়া পৌরসভা ২০০৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর যারা চেয়ারম্যান, মেয়র হয়েছিলেন তারা রুটিন মাফিক অফিস করেছেন।
আর অমি ২০১৫ সালে নির্বাচনে নৌকা প্রতিকে মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর পৌরসভার উন্নয়নে জোড়ালো ভাবে কাজ করে যাচ্ছি। ৭ নং ওয়ার্ডে জন্ম গ্রহনকারী যোবায়ের এলাকায় থেকে পড়াশোনা করেছেন, রাজনীতি করেছেন। এরপর চট্টগ্রাম সিটি কলেজ থেকে এম.এ পাশ করেন। চট্টগ্রাম আইন কলেজ থেকে এল.এল.বি পাশ করেন।
ছাত্রাবস্থায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সক্রিয় কর্মী ছিলেন। একসময় সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক (২ মেয়াদে) ছিলেন। এরপর দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ধারাবাহিক যাত্রায় তাকে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। দলের বিভিন্ন পদে থেকে তিনি কর্মীর নিষ্ঠা নিয়ে কাজ করেছেন। বর্তমানে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন।
আগামী পৌর নির্বাচনের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে মেয়র মোহাম্মদ যোবায়ের দৈনিক হুংকার কে বলেন, রাজনৈতিক যোগ্যতা আর জনগণের সাথে সম্পৃক্ত থাকার বিষয়টি বিবেচনা করলে ইনশাল্লাহ দল আমাকেই মনোনয়ন দিবে। আমার নেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাজে বিশ্বাস করে তাই। আমার বিশ্বাস দলের হাই কমান্ড আমাকে আবারও নির্বাচনে মনোনীত করবে।
আগামীতে অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়লাভ করতে পারবো। আর পুনরায় মেয়র নির্বাচিত হয়ে এখানকার অবশিষ্ঠ সমস্যা চিহ্নিত করে পর্যায়ক্রমে সাতকানিয়া পৌরসভাকে একটি আর্দশ পৌরসভা হিসেবে ঢেলে সাঁজাবো।
মোহাম্মদ যোবায়ের আরও বলেন, “নানা সীমাবদ্ধতার মধ্যেও আমি বিগত নির্বাচনে দেয়া আমার প্রতিশ্রুতির ৯০ ভাগ কাজ করেছি। বাকী ১০ ভাগ সমস্যাও সমাধান হবে, ইনশাল্লাহ”।
তিনি আরো বলেন, আল্লাহ আমাকে যদি আবারো ক্ষমতা প্রদান করেন তাহলে ড্রেনেজ ব্যবস্থা, শহরের লাইটিং এলাকা আরো বৃদ্ধি, জলবদ্ধতা নিরশন, পাশাপাশি ড্যাস্পিং ষ্টেশন নির্মাণের মধ্য দিয়ে সাতকানিয়া পৌরসভাকে বাসযোগ্য নগর হিসেবে গড়ে তুলবো। এখানকার শিশুদের বিনোদনের জন্য একটি শিশু পার্ক নির্মাণ করবো। এলাকার দুঃস্থ ও শিশুদের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করা হবে। আমি যতটুকু পারি জনগণের পাশে থাকবো। এই করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের কালে আমি মানুষের পাশে ছিলাম। আগামীতেও আরো জোড়ালো ভাবে থাকবো। মাদক সন্ত্রাস আর জঙ্গিবাদ উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করে। মাদকের বিরুদ্ধে আমি অতিতে যেমন সোচ্চার ছিলাম এখনো আছি এবং ভবিষ্যতেও সোচ্চার থাকবো।
পরিশেষে দৈনিক হুংকার কে মেয়র যোবায়ের বলেন, “সারাজীবন দলের আদর্শ বহন করে আসছি। দলের সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে রাজনীতি বানিজ্য করি নাই। কোন গ্রুপিং রাজনীতি করি নাই। কাউকে করতেও উৎসাহ দেই নাই। এখন শুধু আমার একটাই কাজ তা হলো জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের রাজনীতি করা। আমি পৌরবাসীর দোয়া ও সমর্থন প্রত্যাশা করছি।


error: দৈনিক হুংকারে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।